কাবিদুল দা (পর্ব ৯)

(অষ্টম পর্বের পর...)


এরপর কাবিদুল দা আমার বাম বগলে চুমু খেতে খেতে, আমার কাঁধ বেয়ে আমার গলায় চুমু খেতে লাগলো তারপর নিজের ডান হাত দিয়ে আমার, ওর পিঠ খামচে ধরা ডানহাতটা টেনে বার করে একইভাবে মাথার উপর তুলে, শুঁকতে আর নিজের গোটা মুখ আমার বগলে ঘসতে লাগলো। আমি হাল্কা হাল্কা গোঙাতে লাগলাম আর নিজের আরেক হাতে কাবিদুলদার মাথার চুল খামচে ধরলাম। 

বগলে চুমু খেতে খেতে ও নিজের মুখ তুলে আবার আমার মুখের কাছে আনল। আমার একহাত উপরে তোলাই ছিল, আরেক হাত কাবিদুল দা মাথার উপরে তুলে, দু হাত আমার মাথার ঠিক উপরে এক হাতের উপরে আরেক হাত, এমন অবস্থায় রেখে, নিজের এক হাতে শক্ত করে আমার দু হাতের কব্জি একসাথে ধরে কাবিদুল দা আরেক হাতে আমার টিশার্টটা কোমর থেকে তুলে নাভির কাছে হাত বুলোতে লাগলো।

ওর ঠোঁটটা আমার ঠোঁট এর জাস্ট উপরে, আমি নিজের মাথাটা তুলে ওকে চুমু খেতে গেলাম, ও নিজের মুখটা আরেকটু উপরে তুলে দিল, আমি আবার চুমু খেতে যাই, অন্যদিকে সরিয়ে দেয়। আমার হাত ওর হাতের পাঞ্জা থেকে বের করা অসম্ভব। আমি ছটফট করে উঠতে ও নিজের হাত একটু আলগা করল। আমি নিজের একহাত বের করে ওর গালে আলতো একটা চড় মারলাম, আমার মুখে হাসি। ওও একটা নিষ্ঠুর হাসি হেসে আমার নাভির কাছে নিজের মুখটা নামিয়ে আনল। 

ওর গরম শ্বাস আমার নাভিতে পড়ছে। ও আমার পেটটা দু হাতে খামচে ধরল। আমি জিমে যাই না, তাই শরীর নরম, চেহারা না মোটা না রোগা। আমার পেটের চর্বি নিজের দুহাতে খামচে ধরে নাভিতে নিজের দাঁড়িমুখ ঘসতে লাগলো। ওর দাঁড়ি ঢুকে যাচ্ছে আমার নাভির মধ্যে, কেমন একটা হচ্ছে আমার গোটা শরীরে, আমি ছটফট করে ওর চুল খামচে ধরে, "আআআহ!!" করে উঠলাম। গোটা শরীর ভালোরকম একবার কেঁপে উঠল।

ও ব্যাপারটা বুঝে, আমার পেটের কাছে নিজের মুখ রেখেই, নিজের বামহাত আমার মুখের কাছে এনে, তার মধ্যমাটা আমার মুখের মধ্যে ঢোকানোর চেষ্টা করলো। ওর দিকে তাকালাম আমি। ও আমার নাভির উপর নিজের থুতনি রেখে আমার দিকে চেয়ে আছে। আমিও তখন যৌন উত্তেজনায় কাবিদুল দার ডাঁসা বড় মাঝের আঙুলটা মুখে পুরে দিলাম, আর চোখ মুজে চুষতে লাগলাম। 

কাবিদুল দা আমার নাভির মধ্যে আলতো ভাবে নিজের জিভ ছোঁয়াল। আমি শিউরে উঠলাম আবার। কি করছে কাবিদুল দা!? ও আমার থেকে কি চায়? ও কি? ও কি আমায়? ও কি আমায় ভা...ভালোবাসে? নাকি!!? আআআহ!!!... মুখ থেকে আমার অস্ফুটে হাল্কা শীৎকার  বেরচ্ছে। কাবিদুল দা নিজের জিভ আমার নাভির মধ্যে ঢুকিয়ে আলতো চাটছে, চুমু খাচ্ছে আর নিজের ডানহাতে আমার পেট এর চর্বিকে দলাইমলাই করছে। আমি উত্তেজনায় আর জোরে জোরে কাবিদুল দা'র আঙ্গুল চুষতে লাগলাম। 

এমন সময় হটাত ফোন বেজে উঠল। কার ফোন?
আমার কানের পাশেই, কাবিদুলদার ফোন। কাবিদুল দা আমার বুকের কাছে উঠে এসে ফোনটা নিয়ে আমার পাশেই হেলান দিয়ে ফোনটা ধরল। আমি এক মুহূর্ত নিথর থেকে, নিজের টিশার্ট দিয়ে নাভির জায়গাটা মুছে, নিজের মুখে একবার নিজের দুটো হাতের তালু ভাল করে ঘসলাম।

-"হুম, হুম, এখুনি!? আচ্ছা.... না না চাপ নেই, যাব। হুম হুম, হ্যাঁ আমার নাম্বার দিয়ে দাও। হুম।

তাকিয়ে আছি আমি ওর দিকে। কাবিদুল দা ফোনটা কেটে বিছানায় ফোনটা ফেলে আমার দিকে তাকিয়ে বলল, "যেতে হবে। একজনকে আনতে, ওই হাওড়া স্টেশনের ওখান থেকে।"

-"এখুনি!?"

-"মম!"

আমি নিঃশব্দে একটা দীর্ঘশ্বাস ফেলে চোখ তুলে সিলিং এর দিকে চাইলাম। ও আমার দিকে ঝুঁকে পড়ে ঠোঁটে চুমু খেতে আসল, আমি বিছানা থেকে তড়াক করে নেমে ঘরের আয়নাটার কাছে এসে, চিরুনি দিয়ে চুল আঁচড়াতে আঁচড়াতে বললাম, "আমায় পৌঁছে দিয়ে তোমার যেতে দেরি হবে না তো!!?"

ও কিছু বললনা। কয়েক সেকেন্ড আমার দিকে একভাবে তাকিয়ে থেকে বিছানা থেকে উঠে এসে আমার পাশেই আমার দিকে পেছন ফিরে নিজের টিশার্ট, হাফ প্যান্ট খুলে জাঙ্গিয়া পড়ে নিল। এক মুহূর্তের জন্য আড়চোখে কাবিদুলদাকে এই প্রথম সম্পূর্ণ নগ্ন দেখলাম, যেমন পিঠ, তেমন পাছা, তেমন থাই। কিন্তু কিছু সেভাবে বোধ করার আগেই ও জাঙ্গিয়া পড়ে, জিন্স পড়ে নিয়েছে। 

আমি নিজের চুল আঁচড়ানোতে মন দিলাম। আয়নার নিচের টেবিলে একটা বডি স্প্রে ছিল, সেটা একটু বগলে লাগালাম আর কনুই এর ভাঁজে। ইতিমধ্যে ও আমার পেছনে এসে দাঁড়িয়েছে। হাত বাড়িয়ে আমার সামনে থেকে চিরুনি একটা নিয়ে চুল আঁচড়াতে লাগলো। আমি সামান্য ভেসলিন নিয়ে নিজের ঠোঁটে ঘসছি তখন। আমার চোখ ওর দিকে। ও আয়নায় নিজের চুল আঁচড়ে চিরুনিটা পেছন থেকে আমার সামনের টেবিলে রেখে, আমাকে পেছন থেকে জড়িয়ে ধরে, নিজের থুতনি আমার কাঁধে রাখল।

আয়নাতে আমরা একসাথে দুজনকে দেখছি এখন।

-"একটু ভেসলিন। ঠোঁটে। দিয়ে দাও।"

ওইভাবেই আমি হাতে একটু ভেসলিন নিয়ে নিজের ঘার একটু বেঁকিয়ে ওর ঠোঁটে ভেসলিন লাগিয়ে দিলাম।

ও ঘর থেকে বেরিয়ে গেল। পেছনে আমিও। আমি বেরনোর পর, ও এগিয়ে এসে দরজা বন্ধ করে, চাবি লাগিয়ে দিল। তারপর গাড়িতে চড়ে গাড়ি স্টার্ট দিতে আমিও বসলাম। সদর দরজার কাছে এসে কাবিদুল দা গাড়ি থামিয়ে আমার হাতে আরেকটা চাবি দিয়ে দরজাটা খুলতে বলল। দরজা খুলতে ওর গাড়ি বেরিয়ে গেল, আমিও সদর দরজার বাইরে এসে আবার বাইরে থেকে চাবি লাগালাম। 

ইতিমধ্যেই দেখি মাসিমা আমাদের দিকেই আসছেন। মাসিমা কাছে আস্তে কাবিদুল দা জিজ্ঞেস করলো, "কি! আজকে এত তাড়াতাড়ি গল্প হয়ে গেল!!?"

-"আর বলিসনা। দিপালি বাপের বাড়ি গেছে। তা কালকে গেলুম, কালকে বললনা একবারও। ওর জা এর সাথে বেশি বকতে পারি না" বলে আমার দিকে মাসিমা তাকিয়ে হেসে বললেন, "চললে!? একটু ঘুমোতে পাত্তে তো!? কাবিদুল তুই ওকে..."

আমি উত্তর দিতেই যাচ্ছিলাম, তার আগেই কাবিদুল দা ভুরু কুঁচকে রাস্তার দিকে তাকিয়ে বলল,

-"আমাকেই যেতে হবে। বেরতে হবে, হাওড়া থেকে প্যাসেঞ্জার আনতে হবে।"

-"ও... আহা! একটু শুলে ভালো হত।" মাসিমার গলায় আক্ষেপের সুর!

-"না না মাসিমা। কলেজ থাকে, টিউশন থাকে। দুপুরে ঘুমনোর সেভাবে অভ্যেস নেই। অসুবিধে হয় না তেমন।"

-"তাহলে ফের আবার এস বাবা! তোমার যা ভালো লাগে বোল, আমি সেদিন তাই রান্না করব।"

-"তাহলে ওর জন্য ম্যাগি রান্না কর!" কাবিদুল দা আমার হাত থেকে চাবিদুটো নিয়ে মাসিমা কে দিল।

আমি ওর হাতে একটা চড় মেরে, মাসিমার দিকে তাকিয়ে বললাম, " না না মাসিমা, আপনি যা ইচ্ছে রান্না করবেন। খেতে ভালো হলেই হোল, ব্যাস!"

মাসিমা কাবিদুল দার কথা আর আমার প্রতিবাদ শুনে, হেসে উঠে বললেন, "বেশ! তাই হবে। শিগগিরি এসো। ভালো থেকো। আল্লা ভালো করুক।"

আমি পায়ে হাত ঠেকিয়ে প্রনাম করে উঠে উনার দিকে তাকিয়ে হেসে, "আসছি" বলে গাড়িতে উঠলাম। কাবিদুল দা বিরক্তির সুরে, "হ্যাঁ হ্যাঁ হয়েছে এবার চল। আসছি মা!" বলে গাড়ি ছেড়ে দিল।


গাড়ি করে ফিরছি। আমি ওর পেছনে। রাস্তাটা বেশ ফাঁকাই। একইভাবে ওর টিশার্ট এর কোমরের কাছে দুদিক খামচে ধরে বসে আছি। বিকেল বেলা। বসন্তের প্রেমের হাওয়া বইছে। এই ভ্যালেন্টাইন্স ডে আসছে না!!? আসছে! তো!? ওর মাথায় কি আছে আসলে!? শয়তান ছেলে এত কম কথা বলে আমি কিছু বুঝতেও পারি না। উউউফ!! না ফোনটা এসেছে ভালই হয়েছে, এত তাড়াতাড়ি এত এগোনো ভালো নয়। কিন্তু। আমার দিকে ওরম চোখ ছলছল করে তাকাল। ওমন করে কেন তাকাল!? আমি ওকে জিজ্ঞেস করলাম আমায় পৌঁছে ওর যেতে দেরি হবে কিনা, তার উত্তর দিলনা, যেন কি একেবারে গাধার মত প্রশ্ন করেছি!! দিতে হয় ঘুমনোর সময় মাথাটা কামিয়ে!! ওর প্রতি অভিযোগ এর কামান দাগতে দাগতেই দুহাতে ওর পেটটা জড়িয়ে ধরে ওর পিঠে মাথাটা একপাশ করে রাখলাম।

ওর মুখ থেকে শুধু একটা উষ্ণ, "ম্মম্মম্ম..." আওয়াজ বেরিয়ে এল শুধু। 

বাড়ি এসে পৌঁছলাম তখন বাজে ৫ টা। আমি গাড়ি থেকে নেমে, ওর কাছে এসে, ওর দিকে তাকিয়ে বললাম, "বাবা মা ওই ৩ ঘণ্টা পরে আসবে!"

-" বল তাহলে, আমি তাহলে কার্ত্তিক দা কে বলে দিচ্ছি আমি যাব না, অন্য কাউকে পাঠাও।" বলে একটা দুষ্টু হাসি দিয়ে কাবিদুল দা আমার দিকে তাকাল।

-"এসো তাহলে!"

-"হোয়াটসাপ করো!"

-"মম!"

কাবিদুল দার গাড়ি এগিয়ে গেল। গলির মোড় এর কাছে গাড়িটা অদৃশ্য না হওয়া অবধি চেয়ে রইলাম। আজকের দুপুর। কাবিদুল দা। আজকে ওর সাথে বেরনো থেকে এই এখন অবধি, ওর সাথে কাটান মুহূর্ত মনে পড়তেই আনন্দের যেন একটা জোয়ার এর সৃষ্টি হোল আমার দেহের সব কোষে। বাড়ির বাইরে দাঁড়িয়ে একাই লজ্জায় লাল হয়ে, ঠোঁট কামড়ে পেছন ফিরে চাবি দিয়ে ঘরের দরজা খুললাম। ঘরের দরজার বাইরে পড়া দু ফোঁটা চোখের জল আমার আজকের আনন্দের সাক্ষী হয়ে রইল ।

 
(ক্রমশ....)  

(অনুগ্রহ করে ব্লগের নিচের কমেন্ট বক্সে জানান, কেমন লাগছে পড়ে। এতে উৎসাহ পাওয়া যায়।)

কাবিদুল দা (পর্ব ৯) কাবিদুল দা (পর্ব ৯) Reviewed by তাসনুভা খান প্রিয়া on February 20, 2021 Rating: 5

No comments:

Powered by Blogger.