আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা



আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা শুরু হয়েছে প্রায় ১৫ দিন। নাসির ভাবছেএকদিন মেলায় যেতে হবে। অন্যান্য বারতো এরই মধ্যে ‘৩/৪ বার যাওয়া হয়ে যেত।কিন্তু এবার বেশী ইচ্ছে হচ্ছে না। তাছাড়া কয়েকদিন লাগাতার হরতালের জন্যওমনটা খারাপ হয়ে গেছে। এবারের মেলা বেশ জমে উঠেছে বলে সবাই বলছে। মনস্থিরকরে নাসির মেলার পথে পা বাড়ায়। একা একা যদিও ভাললাগে না তবুও ও একাই ঘুরতেপছন্দ করে। কারণ ওর কিছুটা ব্যক্তিগত ব্যাপার আছে যা বন্ধু-বন্ধব থাকলে হয়েউঠে না।প্রায় এক ঘন্টা ঘুরেফিরে দেখলো। এবার আগের বছরের চেয়ে ষ্টলসংখ্যা বেশী। কিন্তু একই ধরণের। বিদেশী ষ্টলগুলো এখানকার প্রতিনিধিরমাধ্যমে চালায় বলে জিনিস পত্রের দাম খুব একটা কম নয়। অবশ্য নাসির মেলা থেকেকিছু কেনে না। ও শুধু দেখতে যায়। বিশেষ করে মানুষ দেখতে ওর খুব ভাললাগে।কত প্রকার মানুষ মেলায় যায়। কারো সাথে কারো মিল নেই। এক এক জন এক এক রকম।তাদের ব্যবহারও এক এক রকম। তাছাড়া কিছু মানুষ যায় শুধু ধাক্কা ধাক্কি করারজন্য। যেখানে মেয়েদের ভিড় সেখানেই জটলা। আর জটলার মধ্যেই ধাক্কা ধাক্কিরসুবিধা।নাসির অনেক্ষণ ধরে একজন মহিলাকে ফলো করছে। মহিলার বয়স কত হবে তাঅনুমান করা কঠিন। তবুও নাসিরের অনুমান করে ৩২/৩৩ হবে। ববকাট চুল। বড় গলাব্লাউজ। পিঠের বেশ কিছু অংশ ফাঁকা। সুন্দর হালকা নীল রংগের একটি শাড়ীপড়েছে। বেশী উগ্র সাজ দেয়নি। মহিলাকে কেন যেন অন্য সকলের চেয়ে একটু আলাদামনে হচ্ছে নাসিরের কাছে। অনেকক্ষণ ধরে লক্ষ্য করছে, মহিলার সাথে কেউ আসেনি।একা। ইরানী ষ্টলে ঢুকে কয়েকটি ছোট জিনিস কিনে বেরিয়ে এলো। ঐ ষ্টলে ভিড়প্রচন্ড। নাসির লক্ষ্য করলো ভিড় এড়িয়ে চলছে মহিলা। নাসির কেন যেন মহিলারপ্রতি আকর্ষণ ফিল করলো। ওর মনে হলো মহিলার সাথে যদি আলাপ করতে পারতো তবে ওরখুব ভাল লাগতো।নাসির মহিলার পিছু পিছু আর একটি ষ্টলে ঢুকলো। নাসিরইচ্ছে করেই মহিলার শরীরের সাথে নিজেকে টাস করায়। না মহিলা কিছু বলে না।হয়তো কিছু মনে করেনি। ভিড়ের মধ্যে এমনটি হতেই পারে। মহিলা দেখতে খুব ফরসা।শরীরের গড়নটি খুব চমৎকার। যে কোন পুরুষ মানুষ তার প্রতি আকৃষ্ট হতে বাধ্য।বেশ গম্ভীর প্রকৃতির। কাজেই কাছে ভিড়তে খুব একটা সাহসও পাচ্ছে না নাসির।হঠাৎ ওর মন থেকে কে যেন বলল-সাহস কর। সাহসেই লক্ষি । নাসির পরিকল্পিতভাবেমহিলার পাশে এমনভাবে দাড়াল যে, মহিলার একটি হাত ওর জিনিসটির খুব কাছাকাছি।মহিলা একটু নড়লেই তার হাত লেগে গেল ওর জিনিসটাতে। মহিলা ওর দিকে একটুতাকাল। নাসির অন্য দিকে তাকিয়ে আছে যেন কিছুই জানে না। মহিলা ঐ ষ্টল থেকেবেরিয়ে অন্য আর একটি ষ্টলে ঢুকলো। নাসির আগের মত ঠিক একইভাবে গিয়ে দাড়াল।মহিলা হাত তুলতে গিয়েই আবার লেগে গেল নাসিরের জিনিসটাতে। নাসির যেহেতুমহিলাকে নিয়ে ভাবছে তাই ওর জিনিসটি বেশ শক্ত হয়ে গেছে। মহিলা এবার বুঝতেপারলো যে, নাসিরের এ কাজ ইচ্ছেকৃত। এবারও কিছু না বলে ষ্টল থেকে বেরিয়েমাঠে কিছুক্ষণ ঘুরলো। তারপর আর একটি ষ্টলে ঢুকলো। নাসির আগের মতই পাশে গিয়েদাড়াল।হঠাৎ নাসির অনুভব করলো ওর জিনিসটিতে একটু চাপ। এবার নাসির অবাকহয়ে তাকাল মহিলার দিকে। মহিলা অন্যদিকে তাকিয়ে মিষ্টি মিষ্টি হাসছে। নাসিরবুঝতে পারলো মহিলা ইচ্ছে করেই ওর জিনিসটিতে চাপ দিয়েছে। নাসির আরও একটুঘনিষ্ট হয়ে দাড়াল। মহিলা সত্যিই ওর জিনিসটিতে হাত দিয়ে জোরে একটি চাপ দিল।নাসির খুশিতে আত্মহারা। মনে মনে ভাবলো ওর মিষণ সাকসেসফুল। মহিলা ষ্টল থেকেবেরিয়ে মাঠে গিয়ে দাড়াল। নাসিরও ওর পিছন পিছন মাঠে গিয়ে ওর পাশেই দাড়াল।মহিলা মিষ্টি হেসে বল-অমন করছ কেন ?আমি আর কি করলাম। যা করার তাতোআপনিই করলেন। এখন কি খারাপ লাগছে জানেন ? নিচের দিকে তাকিয়ে নাসির হেসেবলে। মহিলা ওর দিকে তাকিয়ে বলে-খুব খারাপ লাগছে ? ঠিক আছে চল আমার সাথে।বলেই হাটতে থাকে। নাসির সুবোধ বালকের মত মহিলার পিছু পিছু চলতে থাকে। মেলাথেকে বেরিয়ে একটি সুন্দর কারের কাছে এসে দাড়াতেই ড্রাইভার দৌড়ে এসে দরজাখুলে দেয়। মহিলা নাসিরকে বলে-উঠো। নাসির কোন কথা না বলে গাড়ীতে উঠে বসে।মহিলা ওর পাশেই বসে। গাড়ী ছেড়ে দেয়। নাসির জানে না ও কোথায় যাচ্ছে। তবেএকটি বিষয় ও নিশ্চিত যে, অঘটন কিছু ঘটবে না।গাড়ী চলতে শুরু করলো।গুলশানের একটি বাড়ীতে এসে থামলো। গাড়ীর মধ্যে কেউ কোন কথা বলে নি। গাড়ীথেকে নেমে মহিলার পিছু পিছু দোতালায় উঠে গেল নাসির। নাসির চারিদিকে তাকিয়েদেখলো কি সুন্দর বাড়ী। এর আগে এতো সুন্দর বাড়ী দেখার সৌভাগ্য হয়নি ওর।বিরাট একটি ড্রইং রুম। চারজোড়া বড় বড় সোফা দিয়ে সাজানো রুমটি। বাঁ দিকেরদেয়ালে বিদেশী পেইটিং। রুচি সম্মত একটিড্রইং রুম। মহিলা ওকে বসতে বলেপাশের রুমে চলে গেল। নাসির চারিদিকে দুচোখ মেলে তাকিয়ে দেখছে আর দেখছে।মহিলা কত বড়লোক তাই অনুমান করতে চাচ্ছে।প্রায় ১৫ মিনিট কেটে গেল। কোথাদিয়ে সময় চলে গেছে নাসির তা টেরই পায়নি। হঠাৎ একটি ‘১৫/১৬ বছরের ছেলে এসেবলল-স্যার, ম্যাডাম আপনাকে ভিতরে যেতে বলেছে। বলেই ঘরটির দিকে দেখিয়ে দিয়ে ওনিচে চলে গেল। নাসির পাশের রুমে ঢুকে আরও অবাক হলো। এটি বেডরুম। একটি খাটছাড়াও ঘরটিতে ২ সেট সুন্দর সোফা বসানো। পুরো ঘরটিই কার্টেটে ঢাকা। নাসিরড্রইং রুমে ঢুকতেই জুতা খুলে এসেছে। ঘরে ঢুকে চারিদিকে তাকিয়ে দেখছে দেখেমহিলা বলে-কি দেখছো ? এখানে এসো। নাসির তাকিয়ে দেখে একটি সোফায় মহিলা বসেআছে। একটি পাতলা মিলমিলে মেক্সি পড়েছে। ব্রেষ্ট দুটি বেশ স্পষ্ট দেখাযাচ্ছে। পরনে একটি লাল রংগের পেন্টি। মহিলার দিকে নাসির অপলোক দৃষ্টিতেতাকিয়ে আছে দেখে মহিলা আবার বলল-কি ব্যাপার কাছে এসে দেখ। নাসির লজ্জা পেয়েএক পা এক পা করে এগিয়ে মাহিলার পাশে এসে দাড়ায়। নাসির তখনও মুগ্ধ নয়নেতাকিয়ে দেখছে মহিলাকে। মহিলা হাত বাড়িয়ে ওর একটি হাত ধরে পাশে বসিয়ে দেয়।বলে-আরে রিলাক্স। কোন ভয় নেই। এটা আমার বাড়ী। এখানে আমাদের ডিসটার্ব করতেকেউ আসবে না। তুমি ফ্রি হও। এক কাজ কর। পাশের ড্রেসিং রুমে লুঙ্গি আছে, তুমি তোমার কাপড় খুলে একটি লুঙ্গি পড়ে ওয়াস রুম থেকে হাতমুখ ধুয়ে ফ্রেস হয়েএসো। কেমন ?
নাসির কাঠের পুতুলের মত উঠে পাশের রুমের দিকে আগালো।আবারযখন ফিরে এলো তখন দেখলো সোফায় বসে মহিলা ড্রিক্স করছে। ওকে দেখে হেসেবলল-এসো। কি খাবে ? টেবিলে কয়েক রকম বিদেশী মদের বোতল আর কিছু ড্রাই খাবাররাখা। নসির নরম সুরে বলে -খুব একটা অভ্যাস নেই।ঠিক আছে। তুমি কোক খাও।এই বলে একটি গ্লাসে কোকের সাথে সামান্য কিছু হুইস্কি মিশিয়ে এগিয়ে দেয়নাসিরের দিকে। নাসির না করতে পারে না। গ্লাসটি হাতে নিয়ে এক চুমুকে শেষ করেফেলে। টেবিলে রাখা ড্রাই ফুড দেখিয়ে বলে-ওগুলো খাও। নাসির একটি রোলতুলেনিয়ে খেতে থাকে। মহিলা আবারও এক গ্লাস কোক মিশিয়ে নাসিরকে দেয়। নাসিরএবার শরীরটা বেশ গরম অনুভব করে। এয়ারকন্ডিশন ঘরেও ওর শরীর ঘেমে উঠছে।ওরমনটা কেমন যেন উড়ু উড়ু করছে। নাসির খাওয়া শেষ করে মহিলার আরও কাছে গিয়ে ওরএকটি হাত ধরে দেখতে থাকে। এতক্ষনে মহিলাও বেশ কিছুক্ষণ ড্রি্কস করায় চোখদুটি লাল হয়ে উঠেছে। নাসিরকে জড়িয়ে ধরে একটি চুমু দেয়। নাসির আর থাকতে পারেনা। মহিলার ব্রেষ্ট ধরে টিপতে থাকে। মহিলা উঠে দাড়িয়ে মেক্সিটা খুলে ফেলে।মহিলার পরনে এখন শুধু একটি লাল টকটকে পেন্টি। এক টানে নাসিরের লুঙ্গিটাখুলে দেয় মহিলা। নাসিরের জিনিসটি ফ্রি পেয়ে লাফিয়ে উঠে। নাসিরও দাড়িয়েমহিলার ব্রেষ্টে মুখ লাগিয়ে চুষতে থাকে। এমনি করে অনেক্ষণ চোষার পর মহিলাওর মাথা ধরে নিচের দিকে নামাতে থাকে। নাসির বসে পড়ে পেন্টির উপরে যেখানেমহিলার নাভি সেখানে মুখ নিয়ে চুমু দিতে দিতে নিচের দিকে নামতে থাকে। হঠাৎমহিলাটি ওর পেন্টির একটি সাইট সরিয়ে দিতেই নাসিরের সামনে একটি ছেলেদের মতলিঙ্গ বেরিয়ে আসে। নাসির অবাক হয়ে লিঙ্গটির দিকে তাকিয়ে থাকে। মহিলা বুঝতেপেরে পেন্টিটা খুলে টাটানো লিঙ্গটি নাসিরের মুখের কাছে এনে ওটা চুষতে বলে।নাসিরের তখন তেমন কোন সেন্স নাই। মদ খাওয়ায় আর শরীর গরম হওয়ায় ও তখন কিছুমনে না করে মহিরার দন্ডায়ীত লিঙ্গটি মুখে নিয়ে চুষতে থাকে। কিছুক্ষণেরমধ্যেই লিঙ্গটি শক্ত হয়ে লাফাতে থাকে। লিঙ্গটি বেশী বড় নয় আকারে ৫ ইঞ্চিরমত, তবে বেশ শক্ত। লিঙ্গের গোড়ায় বেশ লোমে ঘেরা। নাসির টেনে টেনে দেখারচেষ্টা করে যে ওটা আসল না নকল। কিন্তু না নকল নয় আসল। বেশ কিছুক্ষণ চোষারপর মহিলা একটু এগিয়ে গিয়ে ড্রেসিং টেবিল থেকে একটি টিউব নিয়ে এলো। টিউবথেকে কিছু ক্রিম বের করে ওর লিঙ্গটিতে মেখে নাসিরকে তুলে বিছানায় নিয়ে গেল।সেখানে নাসিরকে উবু করে শুইয়ে দিয়ে নাসিরের পাছাতে ক্রিম লাগিয়ে মহিলা খুবধীরে ধীরে ওর লিঙ্গটি নাসিরের পাছায় স্থাপন করে চাপ দিল। নাসির কিছুই বলতেপারলো না। একটু চাপ দিতেই মহিলার লিঙ্গটি ওর পাছার ভিতর ঢুকে গেল। নাসিরেরকোন অনুবিধা হলো না। কারণ ওর আগেও কিছুটা অভ্যাস ছিল।নাসিরের একখালাতো ভাই ওর সাথে থেকে কলেজে পড়তো। দুজনকে একই খাটে শুতে হতো। দুজনেরএকখাটে শুতে শুতে কখন যে কি হয়ে গেল একে অপরকে ব্যবহার করতে শুরু করলো। তাইমহিলার ছোট্ট লিঙ্গটি নাসিরের কোন অনুবিধা হলো না। মহিলা নাসিরের মাজা ধরেইচ্ছে মত নাড়াতে লাগলো আর মুখ দিয়ে ইস আহ ইত্যাদি শব্দ বের করতে লাগলো। একসময় মহিলা নাসিরের পিঠের উপর শুয়ে পড়লো। কিছুক্ষণ থাকার পর উঠে বসে নসিরকেউঠতে বলল।রাগ করেছো ? মিষ্টি করে হেসে বলে মহিলা।না রাগ করিনি। তবে অবাক হয়েছি।অবাকহবারই কথা আর একদিন তোমাকে আমার সব কথা বলবো। এখন আস তোমাকে খুশি করি।বলেই মহিলা নাসিরের নেতিয়ে পড়া লিঙ্গটি ধরে নাড়াতে লাগলো। মহিলার হাতেরস্পর্শে লিঙ্গটি আবার লাফিয়ে উঠলো। মহিলা ওর লিঙ্গটি মুখে পুরে আদর করতেলাগলো। দু হাত দিয়ে নাসিরের পিছনটা ধরে টিপতে লাগলো। এক সময় দু হাত দিয়েনাসিরের ব্রেষ্টের বোটায় শুড়শুড়ি দিল। নাসির উত্তেজনায় কেপে উঠলো। মহিলারমাথা ধরে নাসির জোরে জোরে দোলাতে থাকে। হঠাৎ নাসিরের নজর পড়ে মহিলারউম্নোক্ত পিঠ। সাদা ধবধবে পিঠের পরেই গোলাকার বেশ ভারী পাছা। একজন সুন্দরীমহিলার যেমনটি হওয়ার কথা ঠিক তেমনি। দেখেই লোভ হয়। মহিলার পাছাটি দেখেনাসিরের সেক্স আরও বেড়ে যায়। ও মহিলাকে ধরে দাড়করিয়ে জাপটে ধরে। একটি হাতদিয়ে মহিলার পাছাটি টিপতে থাকে। পাছা ভাগ হয়ে যাওয়া জায়গাটিতে আঙ্গুল দিয়েসুড়সুড়ি দিতে থাকে। মহিলা বেশী লম্বা নয়। মোটামোটি ওর সমান। এবার মহিলাটেবিলে রাখা টিউবটি থেকে কিছুটা ক্রিম বের করে নাসিরের লিঙ্গে মাখতে থাকে।মুখে বলে-তোমার দেহের সাইজের চেয়ে এটার সাইজ বেশ বড় আর মোটা। কি করে বানালে? খুব চোষাও বুঝি ?নাসির মহিলাকে আবার জাপটে ধরে বলে-কেন চোশালে মোট হয় নাকি ?অবশ্যই। যত চোষাবে ততই তোমার ওটা মোটা হবে।এবারমহিলা কিছুটা ক্রিম নিজের পাছায় লাগিয়ে ধব ধবে সুন্দও আর নরম বিছানাটিতেগিয়ে চিৎ হয়ে শুয়ে পড়ে। হাতের ইসারায় নাসিরকে ডাকে। নাসির এগিয়ে গিয়ে খাটেরকাছে দাড়ায়। তারপর মহিলার সুন্দর লোমহীন রান দুটি নিজের দুই কাধে তুলেমহিলার দু রানের মাঝের ফুটোতে ওর পিচ্ছিল লিঙ্গটি স্থাপন করে চাপ দেয়।পিচ্ছিল রাস্তা পেয়ে নাসিরের এতোক্ষণ ধরে ক্রিম মাখা লিঙ্গটি মহিলার ভিতরঢুকে যায়। নাসির লক্ষ্য করে মহিলার লিঙ্গটি কাত হয়ে নেতিয়ে পড়ে আছে।লিঙ্গটির চারপাশে সুন্দর পশমের মত লোমে ঘেরা। তবে নিচের দিকে অর্থাৎঅন্ডকোশের নিচে কোন লোম নেই। কাজেই খারাপ লাগছে না। চিৎ হয়ে শুয়ে থাকাতেমহিলার ব্রেষ্ট দুটি যেন আরও ছোট মনে হচ্ছে। নাসির মহিলার মাজাটি ধরে বেশআরাম করে নিজের মাজা দোলাতে থাকে। মহিলা একটু উচু হয়ে নাসিরের ব্রেষ্টেরনিপল দুটি একটু একটু করে চিমটি কাটতে থাকে। আর নাসির উত্তেজনায় কেপে কেপেউঠে। কিছুক্ষন এভাবে করার পর নাসির লিঙ্গটি বের করে ফেলে। তখন মহিলা উঠে দুপা খাটের নিচে নামিয়ে উবু হয়ে দাড়ায়। ভারী পাছাটি নাসিরের দিকে বের করেদিতেই পাছাটি বেশ ফাক হয়ে যায। নাসির এবার ওর দন্ডায়মান লিঙ্গটি জায়গামতস্থাপন করে ধাক্কা মারে। পিচ্ছল রাস্তা পেয়ে বেশ সহজেই মহিলার পাছায় পুরোলিঙ্গটি ঢুকে যায়। এবার নাসির ইচ্ছে মত মহিলার মাজা ধরে নিজের মাজা দ্রুতোদোলাতে থাকে। এই দোলানোর ফলে মহিলা উত্তজিত হয়ে আহ উহ শব্দ করতে থাকে।মহিলা উত্তেজিত হয়ে বলে- জোরে আরো জোরে কর, আরো জোরে। নাসির এখন চরমপর্যায়ে। সে মহিলার সুন্দর নরম পাছাটি দুহাত দিয়ে ধরে মাজা দোলাতে দোলাতেপাছায় থাপ্পর মারে। মহিলা আরও উত্তেজিত হয়ে আরও শব্দ করতে থাকে। এভাবে আরবেশীক্ষণ চলতে পারে না। নাসির অনুভব করে কে যেন ভিতর থেকে ওর লিঙ্গ টেনেধরছে। আর তখনই ভিতর থেকে চিরিৎ চিরিৎ করে ওর সব সুখ বেরিয়ে আছে। তারপরওনাসির থামে না। ও যেন উন্মাদ হয়ে গেছে। পাগলের মত মাজা দোলাতে থাকে। তারপরমহিলার খোলা পিঠি নিজেকে সপে দিয়ে দুহাত দিয়ে মহিলার ব্রেষ্ট দুটি ধরে ঘনঘন নিশ্বাস নিতে থাকে। মহিলাও বুঝতে পারে নাসিরের শেষ পর্যায় তাই কিছু নাবলে ওর কাছে নিজেকে সপে দেয়।
ওভাবে কিছুক্ষণ থাকার পর নাসির উঠে বসে। মহিলা একটি তৃপ্তির নিশ্বাস ছেড়ে বলে আমার স্বামীর পর তুমি একমাত্র ব্যক্তি যে আমাকে ভোগ করলে। আসলে কি থেকে যে কি হয়ে গেল আমি এখনও বুঝে উঠতে পারছি না। তোমার সরল ভাব দেখে আর আমার প্রতি তোমার আকর্ষন দেখে কেন যেন তোমাকে ভাল গেলে লেগে গেল। তাই কিছু না ভবে তোমাকে নিয়ে এলাম। তবে একটি কথা তুমি ছাড়া আমার এই গোপন রহস্য আর কেউ জানতে পারবে না। প্রমিজ করতে হবে। একটু দম নিয়ে মহিলা মৃদু হেসে বলে অবশ্য তামার জন্য আমার দরজা সব সময়ই খোলা থাকবে। তবে আসার আগে টেলিফোন করে কনফার্ম হয়ে আসবে। কারণ আমি সব সময় থাকি না। এবার তুমি ফ্রেস রুমে গিয় ভাল করে স্নান করে ফ্রেস হয়ে এসো।
নাসির বাথরুমে ঢুকে বিদেশী সব জিনিস দিয়ে ইচ্ছামত স্নান করে নিজের কাপড় পড়ে এসে দেখে মহিলা ইতিমধ্যে ড্রেস চেঞ্জ করে আর একটি সুন্দর মেক্সি পড়েছে। এটাতে ওর শরীর দেখা যাচ্ছে না। টেবিলে বিভিন্ন ফল আর জুস রাখা। নাসিরকে দেখে মহিলা বলল-এসো। বসো। ফল খাও। এনার্জি ফিরে পাবে। অনেক এনার্জি লস করলে। নাসির এখন বেশ ফ্রি হয়েছে। মহিলার দিকে তাকিয়ে বলে আমি প্রমিজ করছি আমি ছাড়া অন্য কোন ব্যক্তি আপনার কথা জানতে পারবে না। তবে আমার খুব ইচ্ছে করছে আপনার অতীতের কথা শুনতে। যদি বন্ধু মনে করেন তবে আমি বন্ধুত্বের মর্জাদা রাথবো।
মহিলা ওর দিকে তাকিয়ে বলে-আমি তোমাকে বিশ্বাস করি। তাইতো কোন প্রশ্ন না করে তোমাকে নিয়ে এলাম। আজ কোন কথা বলবো না। আগামী সপ্তাহে তুমি আমাকে টেলিফোন করবে। আমি যখন সময় দেব তখন এসো। আমার সব কথা তোমায় বলবো। কেমন ?
নাসির আঙ্গুর খেতে খেতে বলে ঠিক আছে। তবে একটি কথা। আমি আমার জীবণে কয়েকজন মহিলা ও মেয়েকে করেছি। কিন্তু আজকের মত এতো আনন্দ আর কোন দিন পাইনি। আই এ্যাম হ্যাপি।
মহিলা মিষ্টি করে হেসে বলে-আমার কথা শুনলে তুমি বুঝতে পারবে আসলে ভালবাসা দেহের নয় মনের। মন যদি ভাল থাকে তবে তার প্রতিফলন দেহে প্রকাশিত হয়। মহিলা উঠে এসে নাসিরকে জড়িয়ে ধরে একটি চুমু দেয়। নাসিরও মহিলাকে জড়িয়ে ধরে চুমুর উত্তর দেয়। তারপর মহিলা গিয়ে পাশের আলমিরা থেকে একটি বিদেশী পারফিউম এনে নাসিরের দিকে এগিয়ে দিয়ে বলে-এটা তোমার জন্য।
নাসির পারফিউম হাতে নিয়ে বলে-ধব্যবাদ। আমাকে আপনি শুধু ঋনি করছেন।
ঋণ বলছো কেন? তুমি আমার বন্ধু। বন্ধু বন্ধুকে উপহার দিলে ওটা ঋনির পর্যায় পড়ে না।
নাসির মহিলার সাথে হাত মিলিয়ে দরজার দিকে আগায়। গেট থেকে যখন বেরিয়ে যায় তখন আবার ঐ ছেলেটির সাথে দেখা হয়। ছেলেটি হাত উচু করে ছালাম দেয় ওকে।
আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা Reviewed by তাসনুভা খান প্রিয়া on January 31, 2013 Rating: 5

No comments:

Powered by Blogger.