শাসন অধ্যায় ১ – ঝড়ের পর

 শরীরে গরম পানির ছোঁয়াটা বেশ লাগছে। এখনো দু’ পায়ের মাঝে হালকা একটা ব্যথা। প্রতিবারই এই ব্যথাটা হয় কিন্তু তারপরও পেছনের দোয়ার দিয়ে আরিফকে ঢুকতে দেওয়ার প্রবল সুখের তুলনাই এটা তুচ্ছ – সিমোন আরো হাজার বার এই যন্ত্রণা উপেক্ষা করে গুহ্য মৈথুনের স্বাদ নিতে প্রস্তুত। পানিটা বন্ধ করে পর্দাটা সরাতেই, সিমোনের চোখ পড়লো বাথরুমের যে হুকটাতে সব সময় ওর গোসলের গাউন থাকে সেটার দিকে, মনে পড়ে গেলো আরিফ আসার আগে সিমোন নিচে কাপড় ধুতে গিয়েছিলো। কিন্তু সেই ধোয়া আর হলো না। আরিফ হঠাৎ ওর পেছনে দাঁড়িয়ে ওকে জড়িয়ে ধরে, কারো তোয়াক্কা না করে নিচে লন্ড্রি ঘরেই সিমোনের জামার বোতাম খুলতে শুরু করে। সিমোন কোনো রকমে আরিফকে টেনে উপর তলার ঘরে আনার সাথে সাথে, আরিফ সিমোনকে বিছানায় ফেলে ওর সুন্দর দেহটার ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে এক পাশবিক উৎসাহে। ঘটনাটা ভেবেই সিমোনের মনটা নেচে উঠলো। কিন্তু নিচে গিয়ে কাপড় ধোয়া শেষ না করলে পরার মতো কোনো আন্ডারওয়েরও নেই।

 

গা মোছা তোয়ালেটা বুকের ওপর গিঁট দিতে গিয়ে সিমোনের বরাবরের মতই রাগ হতে লাগলো। এক কালে খুব সহজেই বুকের ওপর তোয়ালে প্যাঁচাতে পারতো সিমোন কিন্তু এখন এটা যেন এক লড়াই। যত কষ্ট করেই গিঁট মারুক না কেন একটু টান লাগলেই সেটা খুলে যায়। গিঁট মারা অবস্থাতেও বুকের নিচের অংশটাতে একটা বড় ফাঁক হয়ে থাকে, স্তনের টানে তোয়ালেটা কোনো মতে ঊরু অবধি পৌঁছায়। তোয়ালে বেঁধে একবার নিজেকে আয়নায় দেখলো সিমোন। কৈশোরে যখন সিমোনের দেহটা প্রথম পালটাতে শুরু করে তখন থেকেই সে অনুভব করেছে পুরুষদের আচরণে এক পরিবর্তন, অনুভব করেছে সব সময় শরীরের বিভিন্ন অংশে ছেলে-বুড়োর তীক্ষ্ণ দৃষ্টি। কারো চোখ চলে যায় সিমোনের ভরাট বুকে, তো কারো যায় সিমোনের সুগঠিত নিতম্বে, আবার কেউ কেউ এক ভাবে চেয়ে থাকে ওর দুই ঊরুতে, যেন মনে মনে দুই ঊরুর মিলন স্থলের একটা ছবি এঁকে নিচ্ছে। সকলের মনেই যে নিজের নগ্ন দেহ নাচছে সেটা সিমোন আস্তে আস্তে বুঝতে শিখেছে। অনেকের মাথায় ঘুরছে আরো নোংরা কোনো দৃশ্য। নিশ্চয় অনেকেই নিজেদের গোপন অঙ্গে সিমোনের দেহের কোনো এক গোপন অঙ্গের ছোঁয়া কল্পনা করে।

 

কিন্তু কৈশোর থেকে যৌবনের এই যাত্রায় সিমোন শিখেছে নিজের শরীরের এই প্রভাবটাকে লজ্জার কারণ হিসেবে না দেখে একটা সম্বল হিসেবে দেখতে। সে শিখেছে কোথায় কিভাবে সেই সম্বলটাকে কাজে লাগানো যায়। কোথাও প্রয়োজন একটা মিষ্টি হাসি, আবার কোথাও প্রয়োজন নিজেকে কারো কাছে ঠেলে দেহের ঘ্রাণটা অন্যের কাছে পৌঁছে দেওয়া, অন্যের মনকে কল্পনার খোরাকি সরবরাহ করা। সময়ের সাথে সিমোন দেহের খিদা আর মনের টানের মধ্যেও তফাত করতে শিখেছে। এক কালের খুদে সিমোনের মতো সে এখন নিজের যৌন বাসনাটাকে আর ভালোবাসা মনে করে না। এমনকি নিজের ভালোবাসার মানুষ আরিফের সব আলিঙ্গন যে হৃদয়ের টান না সেটা সে জানে। যেমন আজকে সকালে যে পাশবিক খুদা নিয়ে আরিফ সিমোনের দেহটাকে ভোগ করলো সেটা যে প্রেমিকের কোমল ছোঁয়া ছিলো না সেটা সিমোন পরিষ্কার বুঝতে পেরেছিলো। এমনকি যখন দুজনেই যৌন মিলনের চুড়ায় তখন আরিফের পুরুষাঙ্গ সিমোনের দেহের গভীরে লুকিয়ে থাকলেও আরিফের চিন্তা চেতনা ছিল অনেক দুরে কোথাও। এক কালে সিমোন মনে করতো এমনটি হলে ও খুব মনে আঘাত পাবে, কিন্তু এখন যেন তার ঠিক উল্টো, যেন পরিচিত কারো সাথে মিলনের মাঝে অপরিচিত পুরুষের আলিঙ্গনের নিষিদ্ধ স্বাদ।

 

কথাগুলো ভাবতে ভাবতে সিমোন কার্পেট-মোড়া সিঁড়িগুলো ভেঙে নিঃশব্দে নিচে নামতে লাগলো। সবাই বাইরে। ঘরে একটা নিস্তব্ধতা। কিন্তু লন্ড্রি ঘরের কাছে যেতেই ঘরের মধ্যে ছোট ভাই তারেক কে দেখে সিমোন দরজার পাশে থেমে গেলো। লন্ড্রি করার বান্দা তারেক না, তাহলে এখানে ও কী করছে? সিমোনের খুব উঁকি মেরে দেখতে ইচ্ছে করলো। তারেক নোংরা কাপড়ের ঝুড়ি হাতড়াচ্ছে, যেন খুঁজছে কিছু একটা। বেশ কিছুক্ষণ এটা সেটা ঘেঁটে কী যেন একটা টেনে বের করে খুব মনোযোগের সাথে দেখতে লাগলো সে। ঝুড়িটা পড়ে গেছে তারেকের দেহের আড়ালে, সিমোন সব দেখতে পারছে না, কিন্তু বুকে গিঁটটা এক হাতে ধরে সিমোন দেখার চেষ্টা চালিয়ে গেলো। তারেক এবার আরো কিছু একটা খুঁজে পেতেই একটা জোরে নিশ্বাস ছেড়ে, জিনিসটা নাকের কাছে নিয়ে শুকতে লাগলো। তারেক চোখ বন্ধ করে একটা গভীর শ্বাস নিতেই জিনিসটা সিমোন দেখতে পেলো – একটা প্যান্টি! মায়ের প্যান্টি? ছোট ভাইয়ের কাজে সিমোন যেন আকাশ থেকে পড়লো। সিমোনের কি ভাইকে এক্ষণই বকা উচিত? কিন্তু ভাইয়ের শাসনের কাজটা সে কোনো দিনই করে নি। তাহলে কি মাকে বলা উচিত নাকি মা আরো মনে কষ্ট পাবে? আরেকটু দেখাই যাক।

 

তারেক এবার তুলে নিলো মায়ের ব্যবহার করা একটা ব্রাসিয়ার। সেটার ঘ্রাণ নিয়ে যেন তারেক পাগল হয়ে গেলো। সাথে সাথে নিজের হাফ প্যান্টের ফিতা খুলে সে প্যান্টের মধ্যে ঠেলে দিলো ব্রাটা। পরিষ্কার দেখা যাচ্ছে সে নিজের পুরুষাঙ্গ ডলছে মায়ের বুকের সুবাস ধারী অন্তর্বাস দিয়ে। সিমোনের একটা ক্ষীণ উত্তেজনা অনুভব হতে লাগলো। সে চেয়েও ভাইকে থামাতে পারলো না। তারেক কী মায়ের বক্ষটাকে নগ্ন কল্পনা করছে? তারেকের মনে কী ভাসছে মায়ের বুকের চিত্র? সিমোন আশ্চর্য হয়ে উপলব্ধি করলো যে সে তারেকের হয়ে কল্পনা করছে!

 

সিমোনের কল্পনায় তারেক মায়ের সামনে দাঁড়িয়ে আছে। মায়ের ৫’ ৬” শরীরটা শুধু ওই কাঁচলি আর প্যান্টিতে ঢাকা। তারেক ভয়ে ভয়ের মায়ের কাঁধে হাত রেখে, মায়ের ব্রার ফিতা দুটো সরিয়ে দিলো। মা ফারজানা কিছু বলছে না, শুধু অবাক দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে ছেলের চোখের দিকে। এবার তারেক মায়ের বুকের ভাজে একটা চুমু দিয়ে পেছনো হাত নিয়ে ব্রার হুকটা খুলে দিতেই ফারজানার স্তনগুলো ব্রাটাকে ঠেলে একটু নিচে নামিয়ে দিলো। বেরিয়ে পড়লো স্তনাগ্রের খয়েরী রঙ। তারেক যেন একটু কেঁপে উঠে এক মুহূর্তের জন্যে মায়ের বৃন্ত দেখার জন্য নিজের মনকে প্রস্তুত করে নিলো, তারপর ঝাঁপিয়ে পড়লো এক অনন্তকালের খুদা নিয়ে। মার বোঁটাতে কামড় দিতেই মা হালকা হুংকার করে উঠলো। তারেক এক মনে মায়ের বোঁটা দুটো পালা করে চুষছে। সিমোনের কল্পনায় মায়ের বুক গুলো মাঝারি কিন্তু দেখতে বেস টনটনে, কোনো ঝুল নেই। স্তনাগ্র গুলো ছোট, গাড় খয়েরী রঙের।

 

হঠাৎ বাস্তবের জগতে তারেক একেবারে কেঁপে উঠে নিজেকে সামলানোর জন্যে দেয়াল ধরলো। তারেকের দেহে একটা ঝাঁকুনি। সিমোন এই ঝাঁকুনি চেনে। এটা বীর্য পাতের দোলন। বেশ কিছুক্ষণ চোখ বন্ধ করে কেঁপে, তারেক প্যান্টের মধ্যে থেকে নিজের হাতটা বের করে নিয়ে এলো। তারেকের হাতে ধরা মায়ের ব্রার কাপের মধ্যে পরিষ্কার দেখা যাচ্ছে তারেকের পুরুষ রস। ছোট ভাই কাম-রসে ভেজা মায়ের বক্ষ-বন্ধনীটি কে নোংরা কাপড়ের ঝুড়িতে ফেলে একটা প্যান্টি তুলে নিজের পকেটে ভরে নিলো। এক অপূর্ব সুখের ছাপ তারেকের চেহারায়। সিমোনের নিজের পায়ের ফাঁকেও একটা শিরশিরে ভাব, কিন্তু ভাইকে এবার কিছু না বললেই না। তারেক ঘুরে দাঁড়াতেই সিমোন দরজার আড়াল থেকে সরে সামনে এলো। তারেকের চেহারার সুখটা মুছে গিয়ে সেখানে জড়ো হলো দুশ্চিন্তার ছাপ। তারেকের কথা বলতে কষ্ট হচ্ছে, যেন গলাটা কেউ শক্ত করে ধরে আছে। 

Author:

Leave a Reply

Your email address will not be published.