রাজবংশের পাঁচালী ১

এক যে ছিল রাজা। অবন্তীপুর রাজ্যের সেই রাজার নাম ছিল রাজ সিংহ। রাজার রাণীর নাম ছিল রুপমতী। রুপমতীর নামের সঙ্গে তার চেহারার মিল ছিল। অপূর্ব সুন্দরী। দুর্ভাগ্য রাজদম্পতীর, তাদের কোন ছেলে মেয়ে হচ্ছিল না। রাজা যুবক এবং শক্ত-সমর্থ, রাণী ও স্বাস্থবতী এবং সর্বগুণসম্পন্না। কিন্তু রুপমতীর গর্ভে সন্তান আসছিল না। 

রাজমাতা এদিকে রাজার পেছনে পড়ে গিয়েছিলেন, নাতির জন্যে এবং তার জন্যে রাজাকে দ্বিতীয়বার দার পরিগ্রহ করার ইঙ্গিতও দিয়েছেন। রাজা রাজমাতাকে কিছু অঙ্গীকার না করলেও সমস্যাটা উনার মনের মধ্যে কুরে কুরে খাচ্ছিল।

রাণী রুপমতীর মন খুব খারাপ। এখন পর্য্যন্ত রাজা উনার মায়ের মতে মত মেলান নি, কিন্তু পুরুষ মানুষের মতিগতি কখন যে পালটে যাবে তার কি ভরসা। বৈদ্যরা অনেক ওষুধ রাজা এবং রাণী কে খাইয়েছেন, গ্রহ নক্ষত্র বিচার করিয়েছেন এবং রাণীর ঋতুর সাথে মিলিয়ে অনেক উপচার করিয়েছেন, অনেক পূজো পাঠও 
করিয়েছেন, কিন্তু কোন লাভ হয়নি।

রাণী চিন্তিত, রাজা না আর একটা বিয়ে করে ফেলেন, তাতে রাণীকে দাসীর মত রাজপুরীতে জীবন কাটাতে হবে। রাজা চিন্তিত, তার মৃত্যুর পর রাজা কে হবে? উনার ছোট ভাই যুবরাজ রণ সিংহের একটা ছেলে আছে এবং তার বয়স নয়। যদি রাজ সিংহ সন্তান হীন হয়ে থাকেন, তাহলে সিংহাসনে রণ সিংহের ছেলেই ভবিষ্যতে সিংহাসনে বসবে।

রাজার চিন্তায় রাত্রিতে ঘুম আসেনা, কি করবেন, ভেবে কুল-কিনারা পান না। রাজা চারদিকে দুত পাঠিয়েছিলেন এই খবর সংগ্রহ করার জন্যে, যে রাজ্যে এমন কোন সিদ্ধপুরুষ আছেন কি, যিনি এই ব্যাপারে রাজদম্পতীকে সাহায্য করতে পারেন। এমনকি দূরে বাণপ্রস্থে আসীন কাল পাহাড়ের রাজবৈদ্যকেও নির্দেশ দেয়া ছিল এ ব্যাপারে সাহায্য করার জন্যে। উনি জানিয়েছেন যে দূর থেকে সমাধান বের করতে পারবেন না, পাহাড়ে সস্ত্রীক এসে চিকিতসা করাতে 
হবে। রাজা কোন দিক থেকেও কোন আশার বাণী শুনতে পাচ্ছিলেন না। না রাজ্যে এমন কোন লোক আছে, যে কোন অলৌকিক ক্রিয়াকর্ম করে রাজদম্পতীকে অভীষ্ট ফল প্রাপ্ত করাতে পারে, না কেউ এই ব্যপারে পথ নির্দেশ দিতে পারে।

রাজার কাছে সময় বেশী নেই। ভ্রাতুস্পুত্রের বারো বছর হয়ে গেলে তাকে যুবরাজ অভিষিক্ত করতেই হবে সন্তানহীন রাজার। ভবিষ্যতে যদি রাজার সন্তান মুখ দেখার সৌভাগ্যও হয়, তবু যুবরাজই রাজা হবে। 

অনেক কিছু ভেবে রাজা শেষ পর্যন্ত রাজমাতার সাথে একবার পরামর্শ করার মনঃস্থ করলেন। রাজমাতা বাইরে নিস্পৃহ ভাব দেখালেও উনি কোন এক গূঢ় কারণে ভেতরে ভেতরে উত্তেজিত, ছেলে তার সাথে পরামর্শ করতে আসার জন্যে।। রাজমাতা কেন উদ্গ্রীব এ ব্যাপারে রাজার সাথে আলোচনার জন্যে, সেটা রূপমতী অন্তঃপুরে লক্ষ্য করলেও কারণ আবিষ্কার করতে পারলেন না।

রাজমাতাকে দেখলে বোঝার উপায় নেই যে উনি একজন চল্লিশোর্দ্ধা রমণী। সারা জীবন আরামে, যত্নে এবং শরীরপরিচর্যায় উনার চেহারাতে যৌবন চিরবসন্তের মত বিরাজমান। রাজামাতা বলে কারো চোখ তুলে তাকাবার মত সাহস অবশ্য নেই,কিন্তু কিংবদন্তী ছড়িয়ে পড়েছে পুরো রাজ্যজুড়ে। সবাই বলে, যেমন দেখতে রাণী, তেমনি দেখতে রাজমাতাও। এমন সুন্দরীদ্বয় পুরো রাজ্য খুঁজলেও পাওয়া যাবে না।

ধানাই পানাই না করে রাজা রাজমাতাকে বললেন, “হে রাজমাতা, আমার ঔরসে বাচ্চা হওয়া বোধ হয় ভাগ্যে নেই। রণের ছেলেই সম্ভবতঃ পরবর্তী রাজা হবে। আমি দ্বিতীয়বার দারপরিগ্রহে উত্সাহী নই এবং তার জন্যে রণের ছেলের হাতে রাজপাঠ দিয়ে আমি আমার স্ত্রীকে নিয়ে হিমালয়ে বাণপ্রস্থে চলে যাব। আমি তোমার অনুমতি নিতে এসেছি এবং তোমার আদেশ পেলে আমি পরবর্তী কর্মপন্থা নির্ধারণ করব”।

 রাজমাতা কিছুক্ষণ নিঃশ্চুপ হয়ে বসে রইলেন। তারপর বললেন, “হে রাজন, তুমি আমার সাথে শলা পরামর্শ করতে আসার জন্যে আমি নিজেকে সৌভাগ্যবতী মনে করছি। কিন্তু তুমি যে মনোভাব ব্যক্ত করলে, তাতে আমি অত্যন্ত মর্মাহত। রাজার পক্ষে এমন নিরাশ হওয়া শোভা দেয় না”।

-মা, আমি তোমার কাছে রাজা হিসেবে নয়, ছেলে হিসেবে এসেছি এবং তোমার উপদেশ নিতে এসেছি। আমার শেষ উদ্দেশ্য এবং কর্মপন্থা তোমাকে জানালাম মাত্র, তার আগে যদি এই সমস্যার কোন সমাধান আমরা পেয়ে যাই তাহলে তো আর আমাদেরকে কঠিণ পথ ধরতে হবে না।

-বতস, যেহেতু তুমি ছেলে হিসেবে এসেছ এবং পরামর্শ নিতে এসেছ, তাই আমি তোমাকে একটা পথ নিশ্চয়ই দেখাব। আমি
জানি সেই কঠিণ পথ, কিন্তু আমি এটাও জানি তুমি উদ্যমী, নির্ভীক এবং সমর্থ। তুমি কোন পিতার সন্তান তাও আমি জানি, 
তাই আমি নিশ্চিত, তুমি সফল হবে।

-তোমার আশীর্বাদ আমাদের মাথার উপর থাকলে পথ কঠিণ হোক না? আমি এবং আমার স্ত্রী সে পথ চলে অভীষ্ট লক্ষ্যে আমরা 
পৌঁছে যাব নিশ্চিত। বল, কি করতে হবে?

– অন্ততঃ একবছর তোমাকে অজ্ঞাতবাস করতে হবে। হয়ত আগেও ফল পেয়ে যেতে পার, কিন্তু আমার অনুমান, আমাদেরকে 
এই কৃছ্রসাধন করতে হবে এবং জঙ্গলে-পাহাড়ে থাকতে হবে। তোমার সাথে শুধু তোমার স্ত্রী এবং আমি থাকব । আমাদের সাধারণ 
পোষাকে, সাধারন প্রজাদের মতই দুর্গম পথ অতিক্রম করব। বল, কষ্ট করতে রাজী আছ কি না। 

-হ্যাঁ মা আমি রাজী আছি। তুমি আমার মাথা থেকে দুশ্চিন্তার বোঝা নামিয়ে দিলে। বলো, কবে আমাদের যাত্রা শুরু হবে?

-তুমি মন্ত্রীদের এবং সভাসদদেরকে জানিয়ে দাও যে আমরা আমাদের গ্রীষ্মকালীন শৈলশহর পর্বতপুর যাচ্ছি, সেখান থেকে তুমি 
কিছুদিন রাজপাট চালাবে। আসলে আমাদের গন্তব্যস্থল পর্বতপুর থেকে আরো অর্ধেকদিনের পথ পদব্রজে যেতে হবে কালপাহাড়ে। 
তাই আমরা অজ্ঞাতবাসে থাকলেও তুমি রাজপাট থেকে মাত্র অর্ধেক দিনের দুরত্বে থাকবে। একজন অনুচর পর্বতপুর থাকবে এবং 
অন্যজন আমাদের সাথে থাকবে যাতে পর্বতপুরের সাথে সবসময় আমাদের যোগাযোগ থাকে।

রাজা নিশ্চিন্ত যে রাজমাতা এবং রূপ দুজনেই শারীরিকভাবে যাত্রার জন্যে সক্ষম, তাই অর্দ্ধেক দিনের পথ ওরা অনায়াসেই হেঁটে অতিক্রম করতে সমর্থ হবেন। রাজমাতা বলেছেন যে কোনভাবেই হোক পৌষসঙ্ক্রান্তির আগে পাহাড়ের আশ্রমে পৌঁছুতে হবেই, নাহলে সব প্রচেষ্টা বিফল যাবে। রাজমাতা এটাও বলেছেন যে, দুজনের মধ্যে একজন পথপ্রদর্শক রাজবৈদ্য নিজের শিষ্যকে পাঠাচ্ছেন, যে পর্বতপুরের শৈলাবাস থেকে ওদের পথপরিদর্শক হবে, পাহাড়ের আশ্রম অবধি। পরে সে ই শৈলাবাসের সাথে আশ্রমেরও যোগাযোগ রাখবে।

রাজবৈদ্যের শিষ্যকে গোপালকে দেখলে কেউ বলবে না যে ও রাজবৈদ্যের শিষ্যপুত্র, বরং মনে হবে রাজকীয় দেহরক্ষী, এমনি দৈহিক অবয়ব তার। শৈশবের এক দুর্ঘটনায় গোপাল মূক, কিন্তু বধির নয়। তালগাছের মত লম্বা, মেদহীন, পেশীবহুল শরীর। দেখলেই মনে হয় যেকোন কায়িক পরিশ্রম এই যুবক করতে পারবে। পরদিন রাজা, রূপ আর পদ্মাবতী প্রভাতে অশ্বশকটে রওয়ানা হয়ে দ্বিপ্রহর নাগাদ শৈলাবাস পৌঁছে গেলেন, সেদিন কার মত ওখানেই বিশ্রাম,পরদিন কালপাহাড়ের আশ্রমে যাবেন।

পরদিন সূর্যোদয়ের আগে রওয়ানা হলেন ওরা। মন্থর গতিতে রাজকীয় ভঙ্গিমায় পথ চলা শুরু হ’ল। পাহাড়ী দুর্গম রাস্তা, আস্তে আস্তে পথ আরও সঙ্কীর্ণ হতে লাগল, এবং অনভ্যাসের জন্য ওরাও পরিশ্রান্ত হতে লাগলেন। প্রায় দুই প্রহর সময় অতিক্রান্ত হয়ে গেছে, কিন্তু ওদের বর্তমান অবস্থান দেখে গোপাল ইঙ্গিত করেছিল যে আরো তিন চার দন্ড সময় লাগবেই লাগবে। হতাশ হয়ে রূপ বলল, “আমি তো মনে হচ্ছে আর এক পা’ও হাঁটতে পারবো না। তোমরা বরং আমাকে ছেড়েই এগিয়ে যাও”।

রাজমাতা বললেন, “এরকম হয় না কি রূপ? ঠিক আছে আরো কিছুক্ষণ বিশ্রাম করে নাও, তারপর দেখা যাবে”।

রাজা রাণীমা কে বললেন, “মা তোমারও পায়ের অবস্থা খারাপ। আমার তো মনে হয় তোমরা দুজনেই হাঁটতে পারবেনা”।

রাজমাতা পদ্মাদেবী বললেন,” না, আমি কষ্ট করেও পৌছে যাব। তোমরা রূপের দিকে বরং বেশী মনযোগ দাও”।

তারপর নিভৃতে ছেলেকে বললেন,” গোপাল কি রূপকে কোলে তুলে নিয়ে পথ চলতে পারবে? আমার তো মনে হয় রূপ আর বেশী হাঁটতে পারবে না”।

সায় দিয়ে রাজা গোপালকে বললেন, “গোপাল, তুমি কি রাণীকে কাঁখে বসিয়ে চলতে পারবে”?

গোপাল রাণীর দিকে অল্পক্ষণ দেখে ইঙ্গিতে বলল বলল, ও রাণীকে কোলে তুলে চলতে পারবে। রাজা গোপালকে আদেশ দিলেন,“রাণী কে কোলে তুলে নিয়ে তুমি পথ চলতে শুরু কর”।

রূপ এসে নিভৃতে রাজাকে বললেন, “না, না আমার লজ্জা করছে। পরপুরুষের কোলে চড়তে আমার অস্বস্তি করবে না? ও আমার শরীরের প্রত্যেকটা অঙ্গ স্পর্শ করতে পারবে, তুমি তো জানো আমি স্পর্শকাতর, আমার অস্বস্তি হবে। অন্য কোন উপায় নেই”? 

পদ্মা সামনেই ছিলেন। উনি বললেন,”পুত্রী, তোমার আবার লজ্জা কিসের? বিপদের সময় এমন সুযোগ জীবনে পাওয়া যায় না, আরামে যাত্রা কর এবং অনাত্মীয় শরীর-স্পর্শের আনন্দ উপভোগ কর। তুমি রাজাদেশ পেয়েছ। তোমার কিসের ভয় বা চিন্তা? যদি আমি এই সুযোগ পেতাম তাহলে আমিও কোলে চড়ে বসতাম। তুমি লজ্জা ত্যাগ কর। সামনে তোমাকে অনেক কিছু ত্যাগ করতে হবে। এতে সুখও পাবে, স্বস্তিও পাবে আর আমরাও নিশ্চিন্ত হব”।

রূপ নিমরাজী হয়ে বলল, “ঠিক আছে, তোমরা দুজনেই যখন আদেশ দিচ্ছ, আমি ওর কোলে বসে পড়ব”।

রাজা কিন্তু রাণীমার কথা শুনে চমকে গিয়েছিলেন। রাণীমা পুত্রবধুকে পরপুরুষের সান্নিধ্যকে উপভোগ করতে কেন বলছেন? পুত্রবধু পরপুরুষের সান্নিধ্য উপভোগ করুক, এটা কি মা চান? মায়ের চরিত্রের এই দিকটা কোনদিন রাজা দেখেন নি, তাই ব্যাপারটা নিয়ে গভীরভাবে ভাবতে শুরু করলেন। রাজের বাবা ভাল শাষক ছিলেন, কিন্তু ভগ্নস্বাস্থ্য এবং রুগ্ন ছিলেন, কিন্তু রাণীমা চিরদিনই উচ্ছল, লাস্যময়ী এবং পুরুষ-সঙ্গকামী। যে কোন রাজকীয় সম্মেলনে রাণীমা মক্ষীরাণি হয়ে ঘুরপাক খেতেন, এটা রাজা শৈশব থেকে দেখে আসছেন। আজ পর্য্যন্ত এই ব্যাপারটা গভীর ভাবে ভাবেননি কিন্তু আজ একটু স্মৃতি রোমন্থন শুরু করতেই অনুভব করলেন যে সব কিছু যেন মিলে যাচ্ছে। যৌবনে রাণীমা নিশ্চয়ই বহুবল্লভা ছিলেন। “আচ্ছা পরে এই বিষয়টি নিয়ে বিস্তারিত ভাবে ভাবা যাবে, আপাততঃ তো আশ্রমে পৌছুঁই”, রাজা মনে মনে ভাবলেন। 

এদিকে রাণীমা রূপকে ওর শরীরের বসনকে কিভাবে বিণ্যস্ত করে গোপালের কোলে বসবে সেটা বুঝিয়ে দিচ্ছিলেন। উত্তরীয় দিয়ে ধুতির মত কোঁচা বানিয়ে ঘাগরাটাকে জঙ্ঘার উপরে তুলে নেয়া হল। এতে অতীব গৌরবর্ণা রূপের তিন চতুর্থাংশ শরীর অনাবৃত হয়ে গেল। উত্তরীয়ের আচ্ছাদন থেকে মুক্তি পেয়ে হ্রস্ব কাঁচুলি যেন উদ্ভিন্নযৌবনা রাণীর পুষ্ট এবং অতিশয় বৃহত পয়োধরযুগলকে ভেদ করে, অনাবৃত হওয়ার অপেক্ষায় দন্ডায়মান। তির্যক চোখে তাকিয়ে রাজা গোপালের নিম্নাংগে একটা স্ফিতি লক্ষ্য করলেন, কিন্তু নির্বাক রইলেন।
Author:

Leave a Reply

Your email address will not be published.