মুম্বাইয়ের বাড়ি ভাড়া – সহবাস

দু-দু বার ইউকের ইন্টারভিউয়ে পাস করতে পারায় বন্ধুরা উপদেশ দিলো কল-সেন্টারে কিছুদিন অভিজ্ঞতা নিতেসফ্টওয়ার প্রফেশনাল হবার স্বপ্নে ঘি ঢেলে, কলকাতার একনামি কল-সেন্টার জয়েন করলামকিন্তু ভাগ্যের দোষমাস ৬ যেতে না যেতেই তালা ঝোলালোঅনেক ভেবে চলে এলাম মুম্বাইযোগাযোগ কলকাতা থেকেই হয়েছিলটেলিফোনে এক রাউন্ড আর মুম্বাই এসে এক রাউন্ডপরের দিন মেডিকেলজায়গাটা নবিমুম্বাইয়ের মিলেনিয়ম বিজনেস পার্কধুলো ঢাকা কংকৃটের জঙ্গলযাই হোক উঠেছিলাম ভাসির এক অখাদ্য হোটেলেতাই ইন্টারভিউতে ইতিবাচক ইঙ্গিত পেতেই প্রথম চিন্তা এলো থাকার জায়গা
এমবিপির(মিলেনিয়ম বিজনেস পার্কের) গেটে দাঁড়িয়ে বাসের জন্য অপেক্ষা করছি, এমন সময় একটা বছর বাইশ-তেইশের এক্সিকিউটিভ ড্রেস পরা মেয়ে আমার দিকে এগিয়ে এলোপড়নে সাদা শার্ট আর গ্রে টাইট স্লিট স্কার্টদুর্দান্ত কার্ভি ফিগারতার স্কার্টের কল্যানে আসার সময় তার মাখনরংয়ের উরু নজরে লাগেকাঁধ অবধি কোঁকরানো চুলহাইট পাঁচ তিন কি চারএগিয়ে এসে নিজের থেকেই আলাপ করলজানলাম তার নাম পায়েল, পায়েল চোপড়াঅসাধারণ গলার স্বর আর কথা বলার স্টাইলযা একি সাথে ইনোসেন্ট আর সেক্সিতার মুখেও সেই একই সুন্দর সরলতা আর সেক্স আপিলসেও এসেছে ইন্টারভিউ দিতে, আমাকে সে ইন্টারভিউতে দেখেছে, কিন্তু আমি স্বাভাবিক টেনশনে ওকে লক্ষ করিনিতার পজিশন টিম লিডারসে আগে দিল্লির এক কল-সেন্টারে দু বছর কাজ করেছেএখন উচু পোস্টের জন্য এখানে এসেছেতার বাড়ি ভুপালকথা বলতে বলতে বারবার আমার দৃষ্টি তার সুন্দর তানপুরার মতো পাছাতে গিয়ে আটকে যাচ্ছিলতার পাতলা ঠোট দিয়ে কথা গুলো যেন হাওয়ায় ভেসে ভেসে আসছিলহাসির ফাঁকে বাম দিকের গজদাঁতটা উঁকি দেয়
কথায় কথায় থাকার জায়গার কথা উঠলসে বলল কোপারখেরনেতে কিছু একমডেশন পাওয়া যেতে পারেতার সাথে সাথে এও প্রস্তাব দিলো, যদি টু বি হেইচ কে ফ্ল্যাট পাওয়া যায় তাহলে একটাই ফ্লাট দুজনে শেয়ার করা যাবেপেলে সেটাই হবে বেস্ট আর সেটা অফিসের কাছাকাছিও হবেপ্রথমে একটু অবাক হলেও মনে পরল ছেলে-মেয়ে এক সাথে থাকা দিল্লি বা বম্বেতে কিছু অস্বাভাবিক নয়হয়তো আমার মনের কথা ও বুঝেছিলো তাই আমাকে আস্বস্ত করতে বলল, তার এক বন্ধু এখানে কাজ করে আর সে একটা ছেলের সাথে একটা ফ্লাটে শেয়ার করে থাকেআর দুরভাগ্য এই যে এখন সে মুম্বাইয়ের বাইরেঅ্যানুয়াল ছুটিতে নিজের বাড়িতে গেছেসে থাকলে হয়ত জলদি কিছু ব্যবস্থা হয়ে যেতঠিক করলাম কোপারখেরনের ওখানেই দেখবমনে আসা নিয়ে উদ্যগ নিয়ে চার-পাঁচটা বাড়ি দেখাও হল কিন্তু যা আমাদের পছন্দ হয় তা হয় আমাদের সাধ্যের বাইরে নয়ত ছেলে-মেয়ে একসাথে থাকা যাবে নাএকটা ফ্ল্যাট একার পক্ষে তুলনামুলক ভাবে ব্যয় সাপেক্ষশেষে ঘুরে ঘুরে ক্লান্ত আর নিরাস হয়ে নিজের নিজের আস্তানায় ফেরার পালাআমি যাব ভাসি আর পায়েল যাবে কুর্লাযাইহোক ঠিক করলাম পরের দিন আবার দেখা যাবেনাহলে তার পরেরদিন শনিবার ছুটির দিন, সারাদিন পাওয়া যাবেআমি ভাসি স্টেশন পর্যন্ত এলাম ওকে এগিয়ে দিতেপায়েল চলে যেতে, পায়ে পায়ে এগিয়ে গেলাম রঘুলীলা সপিং-মলএকটা সিম কার্ড প্রয়োজন
পরের দিন দুজনেই আপয়েনমেন্ট পেলামযেমন কথা ছিল অন্য দিকের কিছু বাড়ি দেখা হলসেই একই ঘটনার পুনরাবৃতিদু-এক জনের সাথে কথা বলা হল কিন্তু তারা বেচেলার একমডেশনে রাজি নয়আবার নিরাশাপায়েল আমাকে আস্বস্ত করলআমি পায়েলের সেল নম্বর চাইতে ও অদ্ভুত দৃষ্টিতে আমার দিকে দেখলআমি হাওয়া ঠিক বুঝতে না পেরে আমার নম্বরটাই ওকে দেওয়াটাই শ্রেয় মনে করলামও আমার দুটো নম্বরই নিলযখন সেভ করছিল ওর মুখে একটা অদ্ভুত হাসি দেখলামও আমাকে বলল, পরেরদিন সকালে কল করবে, তারপর সেই বুঝে প্ল্যান করা যাবেরাত দশটা নাগাত ফোন এলোআমার নতুন নম্বর চালু হয়েগেছে তা জানাতেআমি সিম বদলে নিলামরাত বারোটা নাগাত একটা মিস কল এলনা বুঝে পাত্তা দিলাম নানতুন নম্বরে কে আর কল করবেফোনটা সাইলেন্ট করে সুয়ে পরে ছিলামভোররাতে যখন বাথরুম যাবার জন্য যাখন উঠলাম, দেখলাম ফোনে চারটে মিসকলসেই অচেনা নম্বর
সকালে উঠলাম সারে-সাতটা নাগাৎমুখ ধুয়ে নাস্তার পথে একবার মিস্কল দিলাম ওই অচেনা নম্বরেপ্রায় সাথে সাথে কল এলোএবার আর মিস করলাম না, সাথে সাথে তুলে নিলামপায়েলপ্রথমে একটু রাগ, রাত থেকে চেষ্টা করছি ফোন নিচ্ছনা কেন ? এই ধরনের অনু্যোগযাইহোক আমাকে ভাসি স্টেশনে যেতে বলল, কারন একটা বাড়ির সন্ধান পাওয়া গেছে, ও অল-রেডি ভাসি স্টেশনে অপেক্ষা করছেনাস্তা মাথায় তুলে একটা অটো নিয়ে দৌড়লাম ভাসি স্টেশনযতটুকু বিরক্তি এসেছিলতা ওকে দেখে নিমেষে উধাও হয়ে গেলএকটা হাল্কা লেবু রঙের পাতিয়ালা পরেছে, নাকে একটা এখনকার মডার্ন নথএকটা লম্বাটে বিন্দিসম্ভবত চান করে এসেছে, তাই চুল খোলা আর ভিজে চকচক করছেআমি স্বাভাবিক সৌজন্নে আমার এমন বোকামির জন্য ক্ষমা চাইলামও-ও ওর ফোনে রূঢ ব্যবহারের জন্য সরি বললআসলে একটা আসিয়ানা না থাকলে টেনশন বোধ হয় এমনিই আসেশেষ পর্যন্ত বাড়ি পাওয়া গেলসানপাড়াতে একদম পামবিচ রোডের উপর ভাসি স্টেশনের থেকে প্রায় পনের-কুড়ি মিনিটের হাঁটা পথদুটো বাথরুম সংযুক্ত বেডরুম আর মাঝে একটা হলঘরএকটা রান্নাঘরআমার পছন্দ মতো একটা ব্যালকনিও আছে হলের সাথে লাগোয়াসবচেয়ে বড় পাওনা ফুল ফারনিসড ফ্ল্যাট, আর ভাড়া আমাদের সাধ্যের মধ্যেএকটাই সমস্যা হল পুলিশ ভেরিফিকেশন চাইকিন্তু দুজন অবিবাহিত ছেলে-মেয়ে কি করে পুলিশ ক্লিয়ারেন্স পাবেকেয়ারটেকার কে বুঝিয়ে-সুঝিয়ে রফা হল, অন্তত একজনের ক্লিয়ারেন্স চাই
কটাদিন যে কিভাবে কাটল ধরা গেলনাদুজনের আলাদা চাবি করা হলঘরের সব প্রয়োজনিয় সামগ্রি নেওয়া হলট্রেনিং শেষে আমার ডিউটি পরল সকালে ৯টা থেকে ৬টাআর পায়েলের রাতে ১১টা থেকে সকাল ৮টাস্বাভাবিক ভাবে উইকডেতে আমাদের দেখা হত খুব ব্যাস্ততার মধ্যেতাই দেখা হওয়া কথা বলা সব হত উইক-এন্ডেতাও অনেক উইক-এন্ডেই নিজেদের বন্ধু-আত্মিয় সজনদের বাড়ি যাওয়া ছিল
প্রথম প্রথম স্বাভাবিক থাকলেও ধিরে ধিরে পায়েলের কিছু অস্বাভাবিক স্বভাব আমার গোচরে এলোওর বেডরুমের দরজা না লাগিয়ে ন্যুড শোয়াসারা মেঝেতে ছড়িয়ে পরে থাকা ওর সমস্ত পোষাক, এমন কি ব্রা, পেন্টি বা ওর জাঙ্গিয়া পর্যন্তকখনো কখনো ডিউটি যাওয়ার পথে পাতলা চাদরের ভিতর ওর সম্পুর্ন নগ্ন দেহ খোলা দরজার ফাঁক দিয়ে ধরা দিতসেই চাদর সরে গিয়ে ওর শরীরের কিছু কিছু লোভনিয় অংশও চোখে পরতদুর্ঘটনা থেকে বাঁচতে তারাতারি পালিয়ে যেতাম, অফিস
এছাড়াও কখনো কখনো আমার ঊপস্থিতি সম্পুর্ন অগ্রাহ্য করে পাতলা, অর্ধস্বচ্ছ্ব, অতি সংক্ষিপ্ত পোশাকেও এ ঘর ও ঘর করতকখনো যে ওকে কিছু করতে ইচ্ছা হত না তা নয়বরং কখনো কখনো আমার ভিতরের পশুটা জেগে উঠতমনে হত ওকে জাপ্টে মাটিতে ফেলেওর ঐ পোষাক খুলেআমার ঠোট, দাঁত আর হাত দিয়ে ওর সারা শরীরে আমার প্রবল উপস্থিতির জানান দিইআমার যৌবনের খিদেটা ওর শরীর দিয়ে মিটিয়ে নিইকিন্তু অন্য আসঙ্কায় পিছিয়ে আসতামযদি ওর সম্মতি না থাকে, যদি চলে যায়, তাহলে ওর ঐ লোভনিয় শরীর আমার চোখের থেকে চির দিনের মত চলে যাবেওর শরীরের সবচেয়ে লোভনীয় ছিল ওর পিঠঠিক যেন বাঁকানো তীরের ফলাফর্ষা, কমনীয়, নরম মাখনের মতো পিঠে কোমর থেকে একটা সরু গভীর খাদ পিঠের মাঝ বরাবর উঠে ধিরে ধিরে কোথায় যেন হারিয়ে গেছেওর বুক গুলো ছিল ঠিক যেন মালভুমির পাহারের মত গোল খাড়া খাড়াওর ওই খাদ আমার অতি পরিচিত হলেও ওখান থেকে চোখ ফেরানো আমার কাছে খুব কষ্টকর ছিলপ্রথম প্রথম ভীষণ অস্বস্তি হলেও ধিরে ধিরে অভ্যাস হয়ে গেলএকটা সময় এল যে, ওর শরীর আমি চোখ দিয়ে খেতে শুরু করলাম, কি সাংঘাতিক তার নেশা
ধিরে ধিরে উইক-এন্ডে আমাদের দুজনেরই আত্মিয় বন্ধুদের বাড়ি যাওয়া কমে এলোতখন দুজনে তাস বা দাবা খেলে টাইমপাস করতাম না হলে সিনেমা যেতামপায়েল ছিল খুব সাংঘাতিক টিজারএই সঙ্গে বলে রাখি স্কুলে-কলেজে আমি ছিলাম দাবা চাম্পিয়নকিন্তু ওর সাথে দাবা খেলতে বসলে আমার হার অনিবার্য ছিলকখনো কখনো এমন ভাব করত যেন ও একটা পাঁচ-ছ বছরের বাচ্চা মেয়েআর বসিয়ে বসিয়ে ও আমার কামনা বাসনাকে রীতিমত ওর তালে নাচাতখেলতে খেলতে ওর অর্ধস্বচ্ছ্ব কাপড় ইচ্ছাকৃত ভাবে এমন ভাবে ঢলে পড়ত যেন সেটা খুবই স্বাভাবিক কিছুখেলতে বসে আমার চোখ পরে থাকত ওর নব্বই শতাংস খোলা বুকের ওপরআর মন, লুকোচুরি খেলতে থাকা সবচেয়ে লোভনিয়
বাকি অংশের কল্পনায় বিভর থাকতকেমন সুন্দর, কতটা সুন্দর, কতটা লম্বা, কতটা শক্ত; কি রঙ, গোলাপী না বাদামি, না আরো গাঢ়কখনো ওর থেকে একটা সুন্দর নেশা ধরানোর মত সোঁদা গন্ধ পেতাম, চোখ সয়ংক্রিয় ভাবে চলে যেত নিচেওর লম্বাটে গভীর নাভি, ওর নরম কোমর, মাথা খারাপ করা কাঁখের ভাঁজ নিয়ে ও আমার ভেতরে জানিনা কি ভাবে যেন খেলা করতওর পাতলা টাইট হাফপেন্টের ভেতর অস্পষ্ঠ যোনির ঠোট আমার চোখে স্পষ্ঠ হয়ে উঠতপ্রায় সময়েই খেলা শেষ হবার আগেই আমার সংযমের বাঁধ ভেঙ্গে আমার আগ্নেয়গিরিতে বিস্ফোরণ হয়ে যেতএকরাস লজ্জা, অসহায়তা নিয়ে আমার খেলা শেষ হতখেলা শেষে জিজ্ঞাষা করত আমার মুখ লাল কেনএমন ভাব করত যেন ও জানেনা কেনমজা করে আমাকে উপদেষ দিত, খেলা নিয়ে এত সিরিয়াস হওয়া উচিৎ নয়
পায়েলের একটা বড় গুন ছিল ওর রান্না, ওর রান্নার হাত ছিল অসাধারনআর তেমনি সুন্দর ছিল ওর পরিবেশননিয়ম হয়েছিল অন্যান্ন দিন আমি বাজার করে রাখবো আর ও রান্না করে রাখবেকিন্তু ছুটির দিন, ওর একটা শর্ত ছিল যে আমাকে ওর সাথে রান্নাঘরে থাকতে হবেসাধারনত আমি কাটাকুটি করতাম আর ও বাকি সব কিছু করতরান্নাঘরটাতে কেন জানিনা গরম খুব বেশি হততাই ব্রা পরত নাএকটা পেটেন্ট পোষাক ছিল, সেটা পরতপিঠ খোলা, উরু পর্যন্ত ঝুলের পাতলা গেঞ্জি কাপড়ের একটা টেপ ফ্রকস্বাভাবিক ভাবেই রান্না করতে করতে ওর অস্পষ্ঠ শরীর ঘামে ভিজে আরো স্পষ্ঠ হয়ে উঠতখেলার সময় যা আমার গবেশনার বিষয় হত তা রান্নাঘরে আরো স্পষ্ঠ হয়ে উঠতরান্নাঘর আমার পছন্দর যায়গা না হলেও, ওর শরীরের নেশায় বুদ হয়ে ঘন্টার পর ঘন্টা রান্নাঘরে আটকে থাকতামওর শরীরের গলিপথে নাক লাগিয়ে ঘামের গন্ধ নেবার জন্য অথবা ওর পিঠের থেকে গড়িয়ে পড়া কোমলতার স্বাদ নেওয়ার জন্য যখন আমার শরীর ভেতরে ভেতরে পাগল হয়ে উঠত তখনই হঠাৎ উপরের সেল্ফ থেকে কিছু নেবার সময় ওর থং পড়া পাছার অর্ধেক বেরিয়ে পরতরান্নাঘর থেকে বেরিয়ে প্রায়সই আমি দৌড়তাম বাথরুমেওর সদ্য দেখা শরীর কল্পনা করে হাল্কা না হওয়া পর্যন্ত স্বস্তি পেতাম নামোটের ওপর পায়েল ছিল, চমৎকার, আত্মবিশ্বাসি, টিজার, দুষ্টুমিভরা, খেলুরে মেয়েসে জানত ঠিক কি ভাবে মায়াজাল বিস্তার করতে হয় আর গুটিয়ে তুলতে হয়আমাকে নিয়ে ওর ঐ খেলা হয়তো ওর দুষ্টুমির একধরনের অনুশীলন ছিল
আমাদের সদর দরজায় সব সময়েই অটোমেটিক ডোর-লক থাকতবাইরে থেকে চাবি ছাড়া দরজা খোলা যাবে নাএকদিন ঘরে ফিরে আমি আমার চাবি দিয়ে মেন দরজা খুলে, হল পেরিয়ে যখন নিজের ঘরের দিকে যাচ্ছি, দেখলাম পায়েলের ঘরের দরজা হাল্কা খোলাপায়েল সব সময় নিজের ঘর লক করে অফিস যেতঘরের থেকে একটা অদ্ভুত হাল্কা শব্দে ওর দরজার ফাঁকে চোখ রাখলামএবং চোখের সামনে যা দেখলাম তাতে আমি স্তম্ভিতসমস্ত অনুভুতি আমার লোপ পাবার পথেপায়েল দরজার দিকে পিঠ করে ওর বিছানায় বসে কম্পিউটারে সম্ভবত পর্ণ দেখছেআমার সারা শরীর থরথর করে কাঁপতে শুরু করলকানে হেডফোন থাকায় হয়তো মেন দরজা খোলার আওয়াজ পায়নিওকে প্রথমবার বেয়ায়ব্যাক দেখলামএকবার ভাবলাম এই সুযোগের সদ্ব্যাবহার করিকিন্তু কৌতুহল, ওর ঐ যৌনতা দেখার অনুসন্ধিৎসা আমার কাছে তার চেয়েও প্রবল হয়ে উঠল
দরজার ফাঁক দিয়ে ও কি দেখছে তা ঠিক ঠাওর করতে না পারলেও ওর কর্মকান্ড, এক নিষিদ্ধতার ইঙ্গিত দিলবুঝলাম শরীরের ভীতরের আগুন প্রসমিত করতে ব্যস্ত এক হাত ওর বুকে আর এক হাত ওর যোনিতেজানিনা কখন আমার হাত আমার জিওন কাঠিতে ব্যস্ত হয়ে উঠেছেএমন সময়ে হঠাৎ ওর শরীর মুচরে বিছানায় আছরে পরলআমি আর নিজেকে সামলাতে পারলামনাবেসামাল হয়ে দরজাটায় হাত পরে গেলভয়ে পালাতে গিয়ে আরেক বিপত্তি, সোফায় হোচোট খেয়ে সটান পতনকি হয়েছে তা দেখার জন্য, হেডফোন খুলে ঘুরে তাকাতেই,আধখোলা দরজা দিয়ে আমি, পায়েলের কাছে স্পষ্ঠপরিস্থিতিটা ওর মতো বুদ্ধিমতি মেয়ের কাছে অনুমান করতে কোনো অসুবিধাই হবার কথা নয়দুজনেই পরস্পরের কাছে নগ্নকিভাবে পরিস্থিতির সামাল দেব ভাবছি, ও ঊঠলআমার দিকে না ঘুরে লজ্জা ঢাকার জন্য বিছানায় পরে থাকা বালিসের তোয়ালেটা তুলে নিয়ে বুকটা ঢেকে নিলতারপর খাট থেকে নামবার সময়ে আমার দিকে একবার তাকালোওর আলুথালু চুল, আর সুধু তোয়ালে সুধু বুক থেকে যোনি পর্যন্ত ঢাকাআমার মাথা ঝিমঝিম করছেনা দেখলেও বুঝতে পারছি কান মাথা সব লালনেবে আমার দিকে হাল্কা লজ্জা আর দুস্টু একটা রহস্যময় হাসি নিয়ে ধিরে ধিরে মাদালসা ভাবে এগিয়ে এলঠিক যেন চিতা বাঘের সামনে বাঁধা আমি একটা হরিনএসে আমার সামনে দাঁড়ালোওর শরীর ঘামে ভিজে আছেতার সাথে একটা সুন্দর সোঁদা গন্ধ, ওর শরীর থেকে আসছেসব তালগোল পাকিয়ে গেছে মাথায়
আস্তে আস্তে ও বসল আমার কোল ঘেঁসেআমার চোখে চোখ রেখে বলল, ভয় পাও আমাকে ? এ কথার কি জবাব হয় তা আমার জানা নেইআমার নাকটা একটু নেড়ে আদর করে বলল, বাঙালিবাবু, আমি বাঘ নই, মানুষএকটা মেয়ে, আমাকে ছুলে আমি তোমাকে খেয়ে নেবনা এটুকু আমার জন্য যথেষ্ঠআমি ওর কাঁধটা ধরলাম, ও তোয়ালে ছেড়ে আমার গলা জরিয়ে ধরে কপালে একটা চুমু খেলআমি আষ্ঠেপিষ্ঠে জরিয়ে ধরলাম ওকেমেয়েদের শরীর এত নরম হয় ! এতো আমার কল্পনার অতীতও ওর সমস্ত শরীরের ভার আমার ওপর ছেড়ে দিলআমি একটা হাতে ওর ঘারের কাছে ধরে আস্তে আস্তে চুমু খেতে সুরু করলাম ওর কপালে, চোখে, গালেও আর ধৈর্য রাখতে পারলনাদুহাতে আমার চুলে হাত ডুবিয়ে মাথাটা ধরে, আমার ঠোটে ঠোট ডুবিয়ে দিলদুজনের দুটো ঠোট যেন চুপচাপ কথা বলে গেল একে অপরের সাথে, আমি এতদিন পায়েল কে নিয়ে যা কল্পনা করে এসেছি, আজ তার থেকেও সুন্দর করে সাড়া দিল পায়েল আমার ঠোটের প্রতিটি কথারআমার আরেক হাত কখন জানিনা ওর কোমরে চলে গেছেওর ঠোট চুস্তে চুস্তে হাল্কা করে কামড়ে দিলাম দুষ্টুমি করেও মুখটা সরিয়ে নিয়ে দুষ্টু হেসে বলল, বদমাস
তারপর, আমার কোলের ওপর কোমর রেখে আড়াআড়ি করে শুয়ে পরলসম্পুর্ন নিরাভরনসুধু কোমরের কাছে তোয়ালেটা যোনিটা ঢেকে আছে আলগোছেওর চোখে কামনার স্পষ্ঠ ইঙ্গিতহাতটা ওপরে করে চুলটা গোছা করে ধরে আছে একটা সুন্দর ব্যাথায়খুতিয়ে খুতিয়ে আজ দেখছি ওর সেই রহস্যময় শরীরবগলটা পরিস্কার, একেবারে বাচ্ছাদের মতোবুকটা সুন্দর গোল, ছোট্ট বাদামি এরিওলাতে ছোট্ট একটা গোলাপী বোঁটামেধহীন পাতলা কোমর আর লম্বাটে নাভিআমি তোয়ালেটা সরিয়ে দিলামও হাল্কা একটা ইশশ্ শব্দ করে মুখটা লজ্জায় ঘুরিয়ে নিলআমার হাতের ছোঁয়ায় হাল্কা কেঁপে উঠল ওর শরীরওর ঊরু কচি কলাগাছের মতো ভরাট আর সুন্দর, নমনীয় আর কমনীয়ও একটা পা উঁচু করে রেখেছেসেটা হাল্কা করে সরিয়ে দিলাম সুখ গহ্বরের সৌন্দর্য দেখার জন্যওর ভগাঙ্কুরটা লাল, যোনির ঠোট দুটো কামনায় পরিপুষ্ঠওকে ঠিক পরীর মতো লাগছেহাল্কা ছুঁলাম ওর ভগাঙ্কুরও মাই গড !! বলে ও উঠে বসলএবার ও আমার কোলেসম্পুর্ন নগ্ন
আমার চোখে চোখ রেখে সেই দুষ্টু হাসিটা ঠোটে নিয়ে বলল, কি দেখছ, এমন করে? আমি বললাম -তোমাকে
কেন আমাকে আগে দেখনি
দেখেছি, কিন্তু এমন করে নয়
পছন্দ হল আমাকে
কথা বলতে বলতে চোখ গেল ওর সম্মহনকারি বুকেআমার দৃষ্টি অনুসরন করে ও বলল, জানো কত ব্যাথা এই বুকে! আমি ওর ঠোটে একটা চুমু খেয়ে আস্তে করে খুটে দিলাম ওর বোঁটাও -হাঃ- করে একটা শব্দ করলওর বোঁটাগুলো শক্ত হয়ে উঠলআমার মাথাটা ধরে ও আমার সাড়া মুখ চুমুতে ভরিয়ে দিলওর নিশ্বাস ভারি, সাড়া শরীর ঘামে ভিজে গেছেআমি ওকে শুইয়ে আস্তে করে মুঠো করে ধরলাম ওর বুকএকেবারে আমার হাতের মাপেঅসাধারন এক অনুভূতিঠোট সয়ংক্রিয় ভাবে নেমে এলো ওর অন্য বুকেহাল্কা একটা চুম্বন, কেঁপে উঠল ওজিভ দিয়ে ওর এরিওলার চার দিকে ঘোরালামও বেঁকে ঊঠলহাল্কা একটা খুঁতখুঁত আওয়াজ করছে ওচেটে নিলাম ওর বুকের ঘাম, ওর এরিওলা সমেত বোঁটাটা ঠোটে নিয়ে একবার চুসলামওর শরীর মুচরে মমম্ করে উঠে উপুড় হয়ে গেল
এখন ওর খোলা পিঠ, ঘারের কাছ থেকে চুলগুলো সরিয়ে, ঘারে ঠোট ঘসতেই খুঁতখুঁত আওয়াজ করে, হিসহিসিয়ে বলে ইউ আর সাচ এ টিজার !আস্তে আস্তে নেমে এলাম পিঠেচুমুতে চুমুতে ভরিয়ে দিলাম সমস্ত পিঠসেই সঙ্গে দুহাত দিয়ে অনুভব করে চলেছি ওর বুকের নমনিয়তাতারপর ওর কোমরের কাছে এসে, ওর ওই সুন্দর নিতম্বের নেশায় বুঁদ হয়ে চুমু খেতে খেতে হাল্কা করে একটা লাভবাইট দিলামও কামনায় ছট্ফট্ করে অহহ শব্দ উঠে আবার সোজা হয়ে ফিরলএবার আমার মুখের সামনে ওর নাভীওর পেট থেকে ঠোট ঘসে ওর নাভীতে একটা গভীর ভাবে চুমু খেলামও থরথর করে কাঁপতে শুরু করলআমার মাথাটা চেপে ধরলআমি নেমে এলাম ওর যোনিতে, জিভটা ঢুকিয়ে দিলাম দুটি ঠোটের মাঝেও বেঁকে উঠল, শীতকার করতে করতে আমার মাথাটা ওখানে যতটা সম্ভব চেপে, কাঁপাকাঁপা গলায় বলল, “হোল্ড মি টাইট, হল্ড মি টাইট প্লিজআমি নাকটা ওর ভয়াঙ্কুরে চেপে আচমকা মাথা নাড়ালাম, ও ছট্কে ছট্কে উঠলসেই সঙ্গে সুন্দর সোঁদা গন্ধটা আবার পেলাম সাথে সাথে আমার আগ্নেওগিরিতেও বিস্ফোরন ঘটলক্লান্ত ভাবে ও উঠে বসলআমার ঠোটে একটা গভীর চুমু খেয়ে উঠে পালাতে গেল
আমি হাতটা ধরে ফেললাম, বললাম আর আমার পাওনাটা ?”
আমার পেন্টের দিকে ইঙ্গিত করে মুচকি হেসে বলল, “আমিতো আছিই আর রাতটাও পরে আছেআর কাল তোমার ছুটি, তাই না !!
Author:

Leave a Reply

Your email address will not be published.