মন্টু কাজের ছেলে।

সন্ধ্যা হয়ে গেছে, অঞ্জলী বারান্দায় বসে। মন্টু বোধ হয় ভিতরে কাজ করছিলো। সারাদিন ভ্যাপসা গরমের পর আকাশে মেঘ করে এসেছিলো। বিদ্যুতের ঝলকানি আর গুরগুর শব্দ। যদি একটু বৃষ্টি হয়। বিদ্যুতের ঝলকানি ক্রমশঃ বেড়ে চললো, শুরু হলো ঝড়। নিমেষের মধ্যে চারিদিকের আলো নিভে গেলো, চলতে লাগলো ঝড়ের তাণ্ডব। মন্টু ছুটে এসেছে জানলাগুলি বন্ধ করতে। জানলা বন্ধ করে বারান্দায় মোমবাতির আলো ধরাবার চেষ্টা করেছে, কিন্তু অসফল হয়েছে। অঞ্জলী ( মনিবানি)  বললো“থাক, অন্ধকারই ভালো।”
মুষলধারে বৃষ্টি পরছে। অঞ্জলী একা দাঁড়িয়ে, বারান্দায় বৃষ্টির ছাট আসছে, ও ভিজছে। মন্টু বললো “কি করছো মাসী, ভিজছো কেন?” অঞ্জলী হাসলো।
মন্টু অঞ্জলীর পাশে এসে দাঁড়ালো। অঞ্জলী ওকে কাছে টেনে নিয়ে ওর ঠোঁটের সাথে নিজের ঠোঁটের মিলন ঘটালো। আকাশের মেঘের বিদ্যুতের খেলার সাথে সাথে নিজেদের শরীরের বিদ্যুত খেলে যেতে লাগলো।
অঞ্জলী ভয় পেলো। কেউ দেখছেনা তো? বাইরে তখনো নিশ্ছিদ্র অন্ধকার আর প্রবল বর্ষনে বাইরের সব কিছু ঝাঁপসা।
চুম্বনের আকর্ষণে আর নিবিড়তার গভীর আবেগে অঞ্জলী আর মন্টু পরস্পরকে আলিঙ্গন করলো। এ আলিঙ্গন, এ বাঁধনের মধ্যেই ওরা হারিয়ে যেতে চাইলো। দুটি উপসী দেহের দুর্বার আকর্ষণে সমাজের নিয়মকানুন,বয়সের ব্যবধান, সামাজিক প্রতিষ্ঠার ব্যবধান, মনিব-ভৃত্যের ব্যবধান – সব যেন শিথিল হয়ে গেলো। বৃষ্টিধারা চুম্বন আর স্পর্শের নেশায় মত্ত দুটি দেহকে একসঙ্গে ভিজিয়ে দিলো।
অঞ্জলী মন্টুকে নিয়ে শোবার ঘরে এলো। তখনো নিশ্ছিদ্র অন্ধকার। দুজনেই তাদের সিক্ত বসনগুলি এক এক করে খুলে ফেলেছে। আদর করে গা মুছিয়ে দিয়েছে দুজনেই দুজনকে। মন্টু আদর করেছে নারীদেহের কোমলতার আর অঞ্জলী আদর করেছে মন্টুর পুরুষ দেহের লৌহকঠিনতার। এ স্পর্শের আনন্দ থেকে দুজনেই কতদিন বঞ্চিত।
মন্টু স্পর্শ করে চলেছে অঞ্জলীর পরিপূর্ণ দেহ। ওর মাথাটা গুঁজে দিয়েছে স্তনযুগলের মধ্যেখানে, কখনো বা চুম্বনে পরিশিক্ত করে চলেছে মনিবের স্ত্রীর স্তনবৃন্তে আর হাত বুলিয়ে চলেছে ওর নিতম্বের অনাবৃত চামড়ার মসৃনতায়। আদরের মাঝেই খুঁজে নিয়েছে ঘন অরণ্যের ফাঁকে নারীচিহ্নের দ্বারের গভীর গোপন অন্তঃপুর,

 অঞ্জলীর হাতের মুঠোয় যখন মন্টুর উত্তপ্ত কঠিনতা ধরা, মন্টুর অঙ্গুলিতে তখন অঞ্জলীর গভীরের উত্তাপগলা সিক্ততা। শরীরের উন্মত্ততায় ওরা আর না পেরে চলে এসেছে বিছানায়। তারপর দুই নগ্ন শরীর পাগলের মতন চুম্বনে, আলিঙ্গনে, নিবিড় স্পর্শে গোটা বিছানা ওলটপালট করে দিয়েছে। অঞ্জলী উত্তেজনায় তার দুই পা ফাঁক করে মেলে ধরেছে, তখনই মন্টু তার কঠিন পুরুষাঙ্গ আস্তে আস্তে প্রবেশ করিয়েছে।
-“মন্টু ভীষণ ভালো লাগছে – কি সুন্দর করে তুই – আর একটু – হ্যা এইতো সোনা, লক্ষী আমার। আমি পারছিনা মন্টু বিশ্বাস কর্, শরীরের খিদে না মিটিয়ে আমি বাঁচতে পারবনা, মরে যাবো।”
-“এরকম বলোনা মাসী, তোমার কষ্ট হলে আমায় বলো।”
দুটি শরীর তখন চরম উন্মত্ততার দ্বারপ্রান্তে। প্রথমে ধীরে, তারপর জোরে,আরো জোরে। শরীরের ওঠানামার খেলা হয়ে চলেছে ছন্দে ছন্দে তালে তালে। নিশ্বাস পড়ছে জোরে জোরে। একসময় মন্টুর বীর্যস্রোতের বাঁধ ভেঙ্গে গেলো। অঞ্জলীও তখন উত্তেজনার চরম শিখরে। এত আনন্দ ও কোনদিনও কি পেয়েছে?

Author:

Leave a Reply

Your email address will not be published.