বিরহের গল্প koster golpo

koster golpo

বিরিয়ানির গন্ধ্যে অর্ধভোজন হওয়ার আয়োজন, ইশিকার পরিবারে ওর দেখা এই প্রথম বিয়ে।অন্য সব মুসলিম পরিবারের মত বিয়ে নয়।বিয়ের সকল প্রয়োজনীয় কাজকর্ম রাতেই হবে।কোন এক অজানা কারনে কণেপক্ষ হতে কোন অনুষ্ঠান করা হবে না।যা হওয়ার সব ছেলের বাড়িতেই হবে। 

ইশিকার খুব একা থাকতে ইচ্ছা করছে।ও ঠিক করল ছাদ এ যেয়ে বসে থাকবে।পূর্ব দিকটাই বসলে পুকুর দেখা যায়,চাঁদনী রাত , আকাশের চাঁদের চেয়ে পানিতে যে প্রতিফলন দেখা যায় সেটা আরো স্বচ্ছ মনে হয়, মাঝে মাঝে বাতাস আসলে পানিতে ছোট ছোট ঢেউ বয়ে যায়, চাঁদের আলোতে সেই ঢেউ এ সোনালী রঙের আভা সৃষ্টি হয়, এটা খুব উপভোগ করে ইশিকা।

ইফতির ইচ্ছা বিয়ের অনুষ্ঠানটা যাতে ওর নানা বাড়িতে করা হয়।ইফতির বিয়ে আজ।ইশিকার ফুপাতো ভাই।ইশিকার থেকে ৩-৪ বছরের মত বড় হবে। ইফতি ওর নানাবাড়ি তেই থাকত।নীলপুরি গ্রামটা খুব পছন্দের ছিল ওর । ওখানকার একটা স্কুলে ভর্তি হয়ে যায় ইফতি । 

খেলার সাথীর অভাব ছিলো না তবু ওর সারাদিন কাটতো ইশিকার সাথে ঘুরে ঘুরে।ইশিকাও ছিল যেমন ইফতি ভাইয়া, ইফতি ভাইয়া বলে বলে মাথা খারাপ করে দিত! বিরক্ত হয়ে একদিন ইফতি ওকে বলেই ফেলল – আমাকে সারাদিন ভ্যা ভ্যা ডাকিস কেন? নাম ধরে ডাকতে লজ্জা লাগে? সেই থেকে কখনো ইশিকা ইফতিকে ভাইয়া ডাকে নি। 

ছোট বেলায় দাদু বলত, তোদের দুজনের এত ভাব তোদের দেখলে তো একটুও ভাই বোন মনে হয় না রে এক্কেরে বর বউ লাগে দাদুর মুখে এসব শুনতে খুব রাগ লাগত ইশিকার, সাথে সাথে দৌড়ে চলে যেত। আজ অন্য কেউ বউ সেজে ইফতির পাশে বসবে, হয়তো ইফতির হাত ধরে বসে থাকবে হয়তো দুজন দুজনের দিকে চেয়ে থাকবে একজন আরেকজন কে গালে তুলে খাওয়াবে তারপর ?

আর ভাবতে পারছে না ইশিকা এটা যেন কিছুতেই মেনে নিতে পারে না সে। কিছু কিছু মুখ আছে, সে দিকে তাকালে আর চোখ ফেরানো যায় না । তারা কান্না করলেও যেন লাবন্যতা উপচে পড়ে, মনে হয় বুকে জড়িয়ে চোখের পানি মুছে দিতে।ইশিকার টানা টানা চোখ তাকালেই যেন বুকের ভিতর টা খালি খালি লাগে , ফর্সা গাল বেয়ে অশ্রু ঝরছে।

ওর লিপস্টিক মাখা ঠোটে যেন জগতের সব সৌন্দর্য এসে ভর করেছে , সেই সৌন্দর্যের কোন তুলনা হয় না , মোনালিসার রহস্যময় ঠোট দেখলে যেমন মনের ভিতর কৌতূহল জেগে ওঠে, আমার বিশ্বাস, ইশিকার ঠোটে মোনালিসার চেয়ে শতগুণ বেশি রহস্য খেলা করে, অসম্ভব রকমের রহস্য । ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে কাঁদছে ও, ওর ঠোঁটের প্রতিটি কম্পন যেন এক-একটা অসমাপ্ত গল্প । 

ছাদের এক কোণে একটা বেত এর চেয়ারে বসে আছে ইশিকা । নিচে হৈচৈ যেন দিগুণ হয়ে গেছে , বাড়ির উঠানে বড় করে প্যান্ডেল সাজানো হয়েছে, দো’তলা বাড়ি, পিছনদিকে বড় একটা বাগান, সেখানে সারি সারি সুপারি গাছ ; মাঝারি সাইজের পুকুরটা আছে বাগানের এক পাশে । দেখলেই বোঝা যায় পুরাতন জমিদার বাড়ির সাথে এইবাড়ির অনেক মিল রয়েছে । 

চারদিকটা ছবির মত সাজানো গোছানো । নিচ থেকে হৈ চৈ ক্রমশ বেড়ে চলেছে , ইশিকা নিচে যাওয়ার জন্য উঠে দাঁড়াতেই ওর কাঁধ এর কাছে একটা স্পর্শ অনুভব করলে, সে যে এক অতি পরিচিত স্পর্শ ! শিউরে উঠল ইশিকা, ঘুরে তাকাতেও ইচ্ছা করছে না ওর, মাঝে মাঝে ঠান্ডা বাতাস এসে ওর সারা শরীর কাঁপিয়ে তুলছে । নীরবতা ভেঙে কথা বলল ইফতি – একা একা বসে আছিস কেন তুই ? 

ইশিকা ঘুরে দাঁড়িয়ে একদৃষ্টিতে ইফতির দিকে কিছুক্ষণ তাকিয়ে থেকে বলল – বাহ, তোকে তো আজ খুব সুন্দর লাগছে ! বলেই চলে যাচ্ছিলো ইশিকা, কিন্তু যেতে পারল না, ইফতি ওর হাত ধরে ফেলেছে । ইশিকা বিন্দুমাত্র বিচলিত না হয়েই বলল, – হাত ছাড়, নীচ থেকে কেউ চলে আসবে । – আমি দরজা লাগিয়ে দিয়ে এসেছি, আসবে না কেন? 

তোর না নীচে একটা বউ আছে? যা না ওর কোলে যেয়ে বসে থাক। আমার কাছে কি? – আচ্ছা আমি চলে যাচ্ছি, তার আগে বল তুই ওখানে বসে বসে কাঁদছিলি কেন ? – তোকে কেন বলব? যা এইখান থেকে তোর বউ বসে আছে তোর জন্য। – যাব না। বিয়ে করছি বলে কি খুব পর হয়ে গেছি আমি? বলেই ইশিকাকে ছেড়ে দিয়ে ছাদের এক কোণে যেয়ে দাড়ালো ইফতি । গেঞ্জি পরার অভ্যাস ইফতির নেই,গাধাটা পাতলা ফুরফুরে একটা পাঞ্জাবী পরেছে শুধু ।

ইশিকা কিছুক্ষণ কি যেন ভাবতে ভাবতে ইফতির পিছনে যেয়ে হঠাৎ ওকে জড়িয়ে ধরল । ইশিকার নরম স্তনের চাপে ইফটির পিঠের দিকটা যেন অবশ হয়ে গেলো । ইফতি আবিষ্কার করল যে ইশিকা আজ ব্রা পরে নি ! ওর সুগঠিত স্তনের নিপল অনুভব করতে পারছে ইফতি। ইশিকার নিঃশ্বাস ভারী হয়ে উঠেছে, এক ঝটকায় ইফতিকে পিছনে ঘুরালো ও । 

তারপর ইফতির দিকে মায়াময় ছলছল চোখে তাকিয়ে থাকল সেই চোখে যতটা অশ্রু জমা আছে সেটা এক পলকেই মুছে ফেলা যাবে, কিন্তু ওই চোখের চাহনিতে যে সপ্ন লুকোচুরি খেলে সেগুলো কোনভাবেই মুছে ফেলার নয় । ইফতি ফ্যাল ফ্যাল করে তাকিয়ে রইলো ইশিকার দিকে, ইশিকার ফর্সা স্তনের প্রায় পুরোটায় দেখতে পাচ্ছে বুকের উপর থেকে ।

Author:

Leave a Reply

Your email address will not be published.