বন্ধু | ভার্সিটি পড়ুয়া পাঁচ মেয়ে আর এক ছেলের গ্রুপের বিশেষ গল্প | পর্ব ৩১

 জুলিয়েটের সাথে অনেকদিন পর স্কাইপেতে কথা বলে একটা ঘোরে চলে আসলাম। আসলে জুলিয়েট এরকম। একদম আনপ্রেডিক্টেবল। ও কখন কী করে সেটা বুঝা মুস্কিল। মাঝে আমার সাথে অনেকদিন স্কাইপেতে সেক্স চ্যাট করল, তারপর হঠাত সব বন্ধ। কোন কথা নাই। জুলিয়েট কে কিছু জিজ্ঞেস করাও কঠিন ওর মেজাজের জন্য। আবার গতরাতে ও যে আবার এভাবে সাড়া দিবে সেটাও ঘটার আগে বোঝার কোন উপায় ছিল না। এদিকে আবার মিড টার্ম পরীক্ষা চলে আসল। সামনের সাপ্তাহ পুরোটাই পরীক্ষা। সবাই ব্যস্ত হয়ে পরল। চারিদিকে নোট আদান প্রদান আর ফটোকপির ছড়াছড়ি। পড়াশুনা নিয়ে ব্যস্ত সবাই। এই সেমিস্টারে পড়াশুনা ঠিকমত করা হয় নায়। এর মধ্যে মিডটার্ম এসে গেছে। বিশেষ করে স্ট্যাটের কোর্সটার অবস্থা খারাপ। কিছুই পড়া হয় নায়। কী করা যায় ভাবছি। স্ট্যাট শেষ পরীক্ষা। এর আগে দুই দিন বন্ধ। এর মাঝে সব কাভার করতে হবে। অনেক কনসেপ্ট একদম নতুন। তাই এক মিডটার্ম শেষে বাকিদের সাথে আলাপ পাড়লাম।

মিলি বলল ও ওর মামা বাসা যাবে মিরপুর। আজকে কালকে থাকবে। আমি বললাম পড়বি না। বলল ফটোকপি করা আছে, আর আগে কভার করা আছে মোটামুটি। ওর আম্মা আসতেছে। জুলিয়েটের অবশ্য উড়াধুড়া ব্যাপার। সে এগুলা নিয়ে খুব একটা চিন্তিত না। অবশ্য ওর ম্যাথে মাথা ভাল তাই সমস্যাও নাই। ও একটা কাজ আছে বলে উঠে পড়ল। মিলিরও বাসের সময় হওয়ায় চলে গেল। এদিকে আমার, সুনীতির, ফারিয়ার অবস্থা খারাপ। সুনীতি সাধারণত ফাকিবাজি করে না। কিন্তু এইবার ওর বলে স্যারের ক্লাস খুব একটা ভাল লাগে নাই তাই অত মনযোগ দেয় নায়। এখন দেখতেছে অনেক কিছুতে সমস্যা। আর ফারিয়া পড়াশুনার ব্যাপারে একটু নার্ভাস গোছের। তাই আসলেই ও কম পাড়ে না বলতেছে কম পাড়ে বুঝা গেল না। যা বুঝলাম আমার অবস্থা সবচেয়ে খারাপ। ফারিয়া কিছুক্ষণ মিলি আর জুলিয়েট কে গালাগাল পাড়ল। সুনীতি বলল ওদের কী দোষ? ফারিয়া বলল ওরা আর কিছুক্ষণ থাকতে পারত। অন্তত কয়েকটা জিনিস বুঝিয়ে দিয়ে যেত। আমি বললাম কিছুক্ষণ থাকলে হবে না আমাকে পুরা সিলেবাস বুঝান লাগবে। সুনীতি বলল পুরা সিলেবাস? আমি বললাম হ্যা। আমি বললাম একে তো স্যারের কথা এত ঘুম ঘুম যে ক্লাসে জেগে থাকা কঠিন আর এইবার কেন জানি এই সাবজেক্টটা কিছুই পড়ি নাই তেমন। এই অবস্থায় আসলে একমাত্র মুশকিলে আসান সাদিয়া। ও পরীক্ষা দিয়েই হলে চলে গেছে। ঠিক হল সাদিয়ার হলে চলে যাব। এরপর ওকে রাজি করাতে হবে আমাদের পড়াতে।

কিছু খাওয়া দাওয়া করে সাদিয়ার হলের সামনে যাওয়া হল। সাদিয়া প্রথমে ক্ষেপে গেল, বলল সারা সেমিস্টার তোরা কি করছিস? এখন পরীক্ষার সময় আমি কেমনে এত কিছু বোঝাবো তোদের। আমি আমার সব নোট আর বই দিই, তোরা ফটোকপি করে নে। আমি বললাম, বই আর নোট সব আছে। আমাদের সমস্যা কনসেপ্টে। স্ট্যাট পরীক্ষায় কনসেপ্ট না বুঝে খালি মুখস্ত করে গেলে ফেল নিশ্চিত। সাদিয়া গাইগুই করে তর্ক চালিয়ে গেলেও আমরা ছাড়লাম না। বিশেষ করে সুনীতির কথা সাদিয়া ফেলতে পারল না। আর আমি ফেলের দোহাই দিলাম। তখন শেষ পর্যন্ত ঠিক হল আগামীকাল সাদিয়া আমাদের কনসেপ্ট গুলা ক্লিয়ার করে দিবে। এরপর প্রশ্ন হল কই বসা যায়। লাইব্রেরিতে সমস্যা। বিসিএস পার্টির জন্য জায়গা সংকট আর বোঝাতে গেলে কথা বলতে হবে এতে অন্যরা বিরক্ত হবে। ডিপার্টমেন্টের সেমিনারেও কথা বললে লোকে বিরক্ত হয়। টিএসসির বারান্দায় এত গরমে বেশিক্ষণ মনোযোগ ধরে রাখা কঠিন। শেষে ঠিক হল আমার বাসায় পড়া হবে। দশটা থেকে বিকাল পাচটার মধ্যে যা বোঝার বুঝে নিতে হবে। আর সাদিয়া সবাই কে কাজ দিয়ে দিল। বলল আজকে পুরা সিলেবাস ঘেটে কার কোন খানে সমস্যা বের করে নিতে হবে। আর দুপুরে খাওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে। আমি বললাম চিন্তা নিস না, ফারিয়া খাওয়ার ব্যবস্থা করবে। ফারিয়া ক্ষেপে বলল খালি আমার টাকা খসানোর চিন্তা। শেষে নানা হাসা হাসি আর তর্ক শেষে ঠিক হল সবাই মিলে চাদা তুলে খাওয়া হবে তবে সাদিয়া বাদ। ওর কাজের বিনিমনে খাদ্য। আমাদের পড়ানোর বিনিময়ে দুপুরের খাবার জুটবে সাদিয়ার। এই নিয়ে আরেক দফা হাসাহাসি আমাদের।

সাদিয়া হলে ঢুকে যাবার পর জিজ্ঞেস করলাম কে কোথায় যাবে? দুই জনেই বাসায় যাবে। আমি কি করা যায় ভাবছিলাম। মাঝখানে দুই দিন বন্ধ তাই বুয়েটে গিয়ে একটু আড্ডা দিয়ে আসব কিনা ভাবছিলাম। তাই বললাম যাই বুয়েটে যাই একটু আড্ডা দিয়ে আসি। এটা শুনে ফারিয়া আর সুনীতি দুই জনেই না না করে উঠল। বলল এমনিতেই তুই কিছু পড়িস নাই স্ট্যাটে এরপর কালকে সাদিয়া কালকে পড়াতে এসে যদি টের পায় তুই আজকে কিছুই পড়ার চেষ্টা করিস নাই তাহলে ও ক্ষেপে আর পড়াবেই না। ওদের যুক্তির কাছে হার মানতেই হল। বললাম ঠিক আছে, আজকে আর আড্ডা না বাসায় ফিরে যাই। সাদিয়ার হলে নিউ মার্কেট পেরিয়ে বিডিয়ার গেটের কাছে। ফারিয়া আর সুনীতি দুই জনেই ধানমন্ডি যাবে। তাই এখান থেকে রিক্সা খুজতে থাকল। তখন ছয়টা বাজে, অফিস ছুটির পর রিক্সাদের এই সময় বিশাল দাম। সহজে কোন রিক্সাওয়ালা কোথাও যেতে চায় না। তাই আমি আজিজের দিকে না ওরা ধানমন্ডির দিকে রিক্সা কোনটাই পাচ্ছিলাম। শেষমেষ একটা রিক্সা পাওয়া গেল ধানমন্ডির দিকে। সুনীতি বলল চল আমাদের সাথে, সায়েন্স ল্যবের মোড়ে নেমে যাস। ওখান থেকে আজিজ অল্প একটু রাস্তা হেটে চলে যাবি। আমিও ভাবলাম ছোট একটা আড্ডা দেওয়া যাবে রিক্সায় যেতে যেতে।

রিক্সায় উঠার আগে একদফা তর্ক, তিনজনে রিক্সা শেয়ার করলে যা হয়। কে উপরে উঠবে? উপরে উঠা বসা এমনিতেই সহজ না, সারাক্ষণ ব্যালান্স ঠিক রাখতে হয়। তারপর হলের সামনে থেকে ধানমন্ডি শুরু হওয়ার আগ পর্যন্ত রাস্তার অনেকখানি খানাখন্দ আছে। এর ফলে রিক্সার ঝাকুনি বাড়ে, ব্যালেন্স রাখা কঠিন হয়ে যায়। গত মাসেই ক্লাসের সজিব এমন তিনজন মিলে রিক্সায় উঠেছিল পরে পড়ে গিয়ে হাত হাড্ডি ডিজলোকেটেড হল। তাই কেউ রিক্সার উপরে বসতে চাইছিল না। ফারিয়া, আমি আর সুনিতি সবাই সবাই কে ঠেলছিলাম। এর মধ্যে রিক্সাওয়ালা মামা সমাধান দিল। বলল, মামা আপনে পোলা মানুষ হইয়া দুইটা মাইয়ার কথা মাটিত ফেলবেন, উঠেন উপরে উঠেন। আমি সাবধানে টানুম নে। এরপর আর কথা থাকে না তাই উপরে উঠতে হল। এক পা সাইডে রিক্সার চাকার যে গার্ড আছে তার উপর আর আরেক পা ফারিয়া আর সুনিতির মাঝ দিয়ে রিক্সাওয়ালার সিটের পিছনে ঠেক দিলাম। ফারিয়ায় বসল ডানে, আমি উপরে বামে আর সুনিতি আমার নিচে। 

 

রিক্সা চলা শুরু করল। অফিস ছুটির পর যা হয় তাই, একটু এগিয়ে চারুকলার শাহনেওয়াজ হলের সামনে আসতেই দেখি বিশাল জ্যাম। ফারিয়া বলল ধূর বাল। আমি বললাম মনে হচ্ছে নেমে হেটে যাই। এই রাস্তা রিক্সার আগে হেটে চলে যাওয়া যাবে। সুনিতি বলল না, না। আমি হাটতে পারব না এতদূর। আর এইসময় নিউমার্কেটের সামনে মানুষের যা ভিড় এই ভিড়ে ধাক্কা ধাক্কি ঠেলে যাওয়া খুব কঠিন আর জানিস তো মানুষ যা অসভ্য হয় মাঝে মাঝে। ফারিয়াও বলল হু, বসে থাক আমাদের সাথে কিছুক্ষণ। আড্ডা দিতে চাইছিলি না, রিক্সাতেই আড্ডা হোক। আমি বললাম হ্যা তোরা তো আরাম করে বসে আছিস আমি আছি আধা ইঞ্চি জায়গার উপর থাকতি তাহলে বুঝতাম কেমন আরাম লাগে। ওরা হেসে দিল। বলল ক্ষেপিস না। এরকম নানা কথার আদান প্রদানের মাঝে আমাদের ধীর গতির রিক্সা ভ্রমণ চলতে থাকল। একটু পর রিক্সাওয়ালা সোজা না গিয়ে শাহনেওয়াজ হল কে বামে রেখে নিউমার্কেটের পিছন দিয়ে যে গলি মত আছে নিউমার্কেট কাচাবাজারের ভিতর দিয়ে সেদিকে মোড় ঘুরাল। আমি প্রমাদ গুণলাম। এদিকে রাস্তা বেশ ভাঙ্গা। তার উপর কাচা বাজারের সামনে দিয়ে রাস্তা। বাংলাদেশের আর সব কাচা বাজারের মত নিউ মার্কেট কাচা বাজারের সামনের রাস্তা বছরের বার মাস গর্ত হয়ে থাকে। আমি বললাম মামা সোজা গেলে হতো না। রিক্সাওয়ালা বলল না মামা, অনেক টাইম লাগবো। একটু টাইট কইরা বসেন। তাড়াতাড়ি যাইতে পারবেন। ফারিয়া আর সুনিতিও বলল আরে এত কথা বলে বসে থাক, মামা সাবধানে নিব। নিউ মার্কেটের সামনে দিয়ে গেলে আর এক ঘন্টা লাগবে পার হতে।

ফারিয়া, সুনিতি যাই বলুক রিক্সা বামে ঘুরে গলির একটু ভিতরে ঢুকতেই বুঝল কি বিপদে পড়েছে। পিছনে আর রিক্সার লাইন আর গলি থেকে বের হয়ে আসার জন্য আরেকটা রিক্সার লাইন। তাই পিছন ঘুরে বের হওয়ার উপায় নেই। রিক্সা আগাচ্ছে তবে খুব ধীর গতিতে। সমস্যা হল সকালে বৃষ্টি হয়েছে, তারপর সুয়ারেজ লাইন সম্ভবত লিক হয়ে পানি উঠছে কোথাও তাই রাস্তায় কোথাও গোড়ালি আর কোথাও তার থেকে একটু বেশি পানি। সাথে সুয়ারেজের পানির তীব্র দুর্গন্ধ। সুনিতি আর ফারিয়ার এক হাত অটোমেটিক নাকে চলে গেল দূর্গন্ধ চাপা দিতে। আমি চাইলেও উপায় নেই। কারণ দুই হাতে রিক্সার হুডের দুই প্রান্ত ধরে তাল সামলাতে হচ্ছে। পানির কারণে নিচে গর্ত বুঝা যাচ্ছে না তাই রিক্সাওয়ালা মামা না চাইলেও রিক্সা গর্তে পড়ছে আর রিক্সা দুলছে। আমি পড়ে যাবার ভয়ে আর শক্ত করে ধরে বসলাম। ময়লা পানিতে পড়ে হাত পা ভাংগা আর গোসল হওয়ার চাইতে গন্ধ্য সহ্য করে নিরাপদে বসা ভাল। আমি বললাম তোরা সাবধানে বস, পানিতে কিন্তু গর্ত দেখা যাচ্ছে না। বলা মাত্র দুই জনেই আর শক্ত কর ধরে বসল। আর আর ভিতরে চেপে বসল। আমার সমস্যা হলেও কিছু বললাম না কারণ এই অবস্থায় একজন পড়লে পুরা রিক্সা উলটে যাবে। তাই ওরা ভিতরে চেপে বসলেও আমি আর কিছু বললাম না।

অনেক সময় আমাদের আশেপাশে কি ঘটছে তা বুঝতে আমাদের একটু সময় লাগে। আসলে কি হচ্ছে এটা প্রসেস করে ঠিক রিএকশন দিতে সময় লাগে তারপর এই পড়ে যাবার ভয়। তাই প্রথমে বুঝি নি। দুই জন ভিতর দিকে চেপে বসায় আমার ডান পা দুই জনের মাঝে পড়ে চ্যাপ্টা হচ্ছিল। একটু অস্বস্তি হলেও প্রথমে ভাবলাম চেপে বসেছে তাই পা নাড়ানো যাচ্ছে না হয়ত তাই কিন্তু বিশ সেকেন্ড পর টের পেলাম ঘটনা সেটা না। ফারিয়া আর সুনিতি চেপে বসেছে, দুই জনেই দুই জনের সাইডের হাত দিয়ে ধরে রেখেছে ব্যালেন্স ঠিক রাখার জন্য আর ভিতরের হাত দিয়ে নাক চেপে ধরেছে। ফারিয়া ডান সাইডে তাই ওর ডান হাত রিক্সার হাতলে আর বাম হাত নাকে আর সুনিতি আমার নিচে বসা তাই বাম হাত হাতলে আর ডান হাত নাকে। আমার পা ওদের দুই জনের মাঝ দিয়ে রাখা, ভিতরে চেপে আসায় আর ভিতরের দিকের হাত দিয়ে নাক চেপে রাখায় ওদের ভিতরের দিকে শরীরের অংশ উন্মুক্ত। আর চেপে বসায় আমার পা ওদের দুই জনের শরীরের মাঝে চাপা খাচ্ছে আর হাতের ব্যারিয়ার না থাকায় সরাসরি দুধের ধাক্কা লাগছে। ওরা পড়ে যাওয়া নিয়ে এত আতংকিত যে এটা ওদের মাথাতেই নেই। আমার মাথাতেই থাকা উচিত না। কিন্তু সমস্যা হল আপনি যতই তাড়াতে চান মাঝে মাঝে কিছু কিছু চিন্তা আর বেশি করে মাথায় শক্ত হয়ে বসে। প্রতিবার ধাক্কার সাথে সাথে যখন ফারিয়া আর সুনিতির দুধ পায়ের মাঝে ধাক্কা দিচ্ছে সেটা মনে হয় আর বেশি চেপে বসে। এদিকে রিক্সার দুলনিতে উপরে থেকে বার বার স্লিপ করে নিচে নামছি, সুনিতির পিঠে ধাক্কা লাগছে। সুনিতি বলছে শক্ত করে চেপে বস। আমি বললাম চেষ্টা করছি কিন্তু পারছি না। ফারিয়া বলল সুনিতি তুই শক্ত করে বস তাহলে ও পড়ে যাবে না তোর গায়ে ব্যালান্স রাখতে পারবে। ওরা ভালর জন্যই বলছে আমি বুঝছি কিন্তু ইফেক্ট হচ্ছে উলটা। কারণ সুনিতি শক্ত করে বসে আমাকে ঠেকা দেওয়ার চেষ্টা করাতে আমার পুরা জংঘার অংস সুনিতির পিঠে গিয়ে লাগছে। বার বার এরকম ঘষা খাওয়া আবার সুনিতি আর ফারিয়া দুধের চাপা খাওয়ায় আমার প্রায় তখন পাগল অবস্থা। প্যান্টের ভিতর বাড়া মনে ফেড়ে বের হয়ে আসবে এমন অবস্থা। আমি লজ্জায় অবস্থা খারাপ কারণ জুলিয়েট হলে না হয় বুঝিয়ে বলা যেত কিন্তু সুনিতি কে কি বলব। ও আমাকে কি ভাববে। এদিকে ওরা আর বেশি করে চেপে বসছে ভিতরের দিকে দুলনির সাথে সাথে। আর আমার মা দুধের চাপ খাচ্ছে। আগেই বলেছি ফারিয়ার পুরুষ্ট বুক, সুনিতির অতটা না। ফলে সুনিতির টা যা বুঝা যাচ্ছে প্রতি ধাক্কায় পায়ের ফারিয়ার দিক থেকে তার বহুগুণ একটা নরম চাপ পাচ্ছি। সাথে সুনিতির পিঠে জংঘার ধাক্কা। লজ্জায় আর উত্তেজনা, বিপরীত এই অনুভূতির এক মিশ্রণে আমি স্বর্গ আর নরকের মাঝে কোথাও আছি। একদিকে লজ্জায় মারা যাচ্ছি নিজের রিএকশনে। প্রতি ধাক্কায় প্যান্টের ভিতর ধোন মনে হচ্ছে তেড়ে ফুড়ে উঠছে, মনে হচ্ছে টের পেলে কি বলবে সুনিতি। আবার মনে হচ্ছে ক্লাসের ছেলে পেলেদের কথা। ফারিয়ার দুধ নিয়ে কত আলোচনা এদের, একবার যদি ধরত পারত। আর আমি এখানে একের পর ধাক্কা খাচ্ছি দুধের পাহাড়ে। রাতের বেলা দেখা স্বপ্নের কথা মাথায় আসল। সেই স্বপ্নে দেখে ভাবতাম আসলে কেমন হবে এই দুদ। এখন বার বার ধাক্কা খাওয়ার সময় মনে হচ্ছে নরম বালিশের মত হবে হয়ত। এসব মাথায় আসতেই মনে কি ভাবছি এইসব। এরকম পরিস্থিতিতে কিভাবে মাথায় আসে এসব। নিজের উপর নিজের রাগ এসে যাচ্ছে। আবার ধাক্কার সাথে পায়ে লাগা নরম অনুভূতি ভিন্ন চিন্তা এনে দিচ্ছে। এইসব ভাবতে ভাবতে রিক্সা বাজারের সামনের মেইন অংশ পার হয়ে আসল। ঘাম দিয়ে তখন আমার জ্বর ছাড়ার অবস্থা।

রাস্তায় মোটামুটি ভাল অংশে আসতেই ফারিয়া, সুনিতি আর অবশ্যই আমি হাফ ছেড়ে বাচলাম। যদিও সামনে পুরো রাস্তা জ্যাম। খুব স্লো আগাচ্ছে রিক্সা। তবে এই অত্যাচারের মাঝে আর যাওয়া লাগবে না এই ভেবে শান্তি লাগছে। আর বাড়া কে ঠান্ডা করতে নানা আজগুবি জিনিস নিয়ে চিন্তা শুরু করলাম। সুনিতি বলল কিরে কথা বলিস না কেন, ফারিয়া বলল দেখস নাই কেমন টাইট হয়ে বসে ছিল পড়ে যাওয়ার ভয়ে। ভয় কাটছে? আমি এই টপিক তাড়াতাড়ি এড়ানোর জন্য বললাম হ্যা। ওরা নিচে নিজেদের মধ্যে কথা বলতে থাকল আমি গতকাল সন্ধ্যায় মেঘ না থাকলেও সকালে কেন বৃষ্টি হল সেইসব আজগুবি ভাবনা ভাবতে থাকলাম চুপচাপ সব শান্ত করার জন্য। রিক্সা খুব স্লো আগাচ্ছে। ঢাকা কলেজের সামনের ছোট লেনে ঢুকে পড়েছে রিক্সা। উলটা দিক থেকে আরেকটা লাইন। হঠাত করে ফারিয়া আর সুনিতি গলার স্বর নামিয়ে দিয়ে নিজেদের মধ্যে কিছু বলে হেসে উঠল। আমি ভয় পেয়ে ভাবলাম আমাকে নিয়ে কিছু বলছে না তো। তাই উত্তেজিত হয়ে জিজ্ঞেস করলাম কি হয়েছে। ওরা উত্তর না দিয়ে হাসতে লাগল। আমার টেনশন আর বাড়তে লাগল। খেয়াল করে দেখলাম ওরা উলটা দিকের লাইনের একটা রিক্সার দিকে তাকিয়ে আছে। একটা ছেলে মেয়ে বসে আছে রিক্সায়। ওদিকে তাকিয়ে নিজেদের মধ্যে আবার কিছু বলছে। আমি ভাল করে খেয়াল করে দেখি ছেলেটার হাত মেয়ের পিঠের পিছন দিয়ে নিয়ে বগলের তল দিয়ে মেয়ের বুকের উপর। মেয়েটা আর ছেলেটা সোজা সামনে তাকিয়ে আছে যেন কিছু হয় নি। ভাল করে খেয়াল করলে দেখা যায় ছেলেটার হাত যে শুধু বুকের উপর আছে তা না বরং হাতের মুঠো খুলছে আর বন্ধ করছে মেয়েটার বুকের উপর। মাই টিপছে। রিক্সার উপর বসে এই ভিড়ে দুধের দলাই মলাই করছে। প্রতিবার হাত যখন মুঠ করে দুধ ধরছে তখন মেয়েটার ঠোট দুটো অল্প করে ফাক হচ্ছে যেন আবেশ বের করে দিচ্ছে ফু দিয়ে। চিন্তা করলে উত্তেজক এই দৃশ্য দেখে আর উত্তেজিত হওয়ার কথা কিন্তু এই দৃশ্য দেখে হেসে দিলাম জোরে কারণ আমি ভয়ে ছিলাম আমাকে নিয়ে না হাসাহাসি করছে ফারিয়া সুনিতি। এখন দেখি সামনের রিক্সা নিয়ে। হাফ ছেড়ে বাচার হাসি। আমার হাসি শুনে দুই জনেই উপরে তাকাল, বলল কি হয়েছে। আমি বললাম কিছু না। আস্তে আস্তে রিক্সা ধানমন্ডির দিকে বামে মোড় নেওয়ার গলির কাছে চলে আসল, আমি সায়েন্স ল্যাব ওভারব্রিজের পাশে নেমে পড়লাম। নামার সময় মাথায় একটা দুষ্ট বুদ্ধি আসল। বললাম তোরা খুব খারাপ হয়ে গেছিস। দুই জনেই অবাক হয়ে জিজ্ঞেস করল কি হইছে। আমি ফুটপাতে দাড়াতে দাড়াতে চলন্ত রিক্সার দিকে তাকিয়ে বললাম তোরা অপজিটের রিক্সা নিয়ে আলোচনা করতেছিলি না? ফারিয়া মুচকি হাসি দিল আর সুনিতি পুরা লজ্জায় লাল।

Author:

Leave a Reply

Your email address will not be published.