ঊষা মিলন

সেদিনই বিকেলে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করে মান্না আশরাফীর সঙ্গে কথা বলে সময়টা নির্দিষ্ট করে রাখলাম। সন্ধ্যার পর মিথ্যে বলে অফিস থেকে বের হয়ে মান্নার বাড়িতে চলে আসলাম। ঊষা আসলো খানিকক্ষণ বাদে। আমরা বসলাম সেই গুমোট ধরা পর্দা ঘেরা কক্ষটায় যেখানে বহুবার এসেছি। পরিধেয় বস্ত্র খুলে দু’জন বিছানায় গিয়ে শুলাম। ঊষা আমার বুকের ওপর উঠে স্তনজোড়া আমার মুখের মধ্যে গলে দিল। আমি স্তনদুটিকে চুষতে ছুষতে ওর যোনিতে হাতের আঙ্গুল প্রবেশ করিয়ে হস্তমৈথুন করে দিতে লাগলাম। ঊষা উত্তেজনায় কাতরাতে লাগলো। আমি বিছানা থেকে উঠে ওকে চিৎ করে শুইয়ে দিয়ে আমার শক্তোত্থিত লিঙ্গটি ওর সিক্ত যোনিতে প্রবেশ করিয়ে দিলাম। কিছুক্ষণ অঙ্গচালনার পরই ঊষার মুখ দিয়ে শীৎকারধ্বনি বের হতে লাগলো। ঠিক সেই মুহূর্তে আমার শেষ হয়ে যাচ্ছে লক্ষ্য করে টেনে লিঙ্গটা বের করে ওর মুখের কাছে ধরলাম। ঊষাও এই ব্যাপারটার জন্য প্রতীক্ষায় ছিল যেন। ওর মুখের মধ্যে আমার স্খলন হয়ে গেল। স্খলিত বীর্য ওর মুখের ভেতর পগতেই ঊষা খক্* খক্* করে কয়েকটা কাশতে লাগলো। পরে কাশি থেমে গেলে বললো, তোমার বীর্য পান করে আমি মদ্যপানের মতো নেশাগ্রস্ত হয়ে পড়েছি। এটা ঠিক সেই নেশা যা মদ খেলে হয়। এটা কেন হয়?

পুরুষের বীর্য পান করলে মেয়েরা মদের নেশা পায় এটা আমি প্রথম শুনলাম। কিন্তু কেন এই নেশা হয় কিংবা আদৌ হয় কিনা সে সম্পর্কে আমি ঊষার প্রশ্নের কোনো জবাব দিতে পারলাম না। কেবল বললাম, হতে পারে।

হঠাৎ আমার নাকে একটা চামসা গন্ধ এসে লাগলো। গন্ধটা কোত্থেকে এলো আমি চেষ্টা করেও আবিস্কার করতে পারলাম না। ভাবলাম, ঊষার গা থেকে আসতে পারে কি? বিশেষ করে ঘামের গন্ধ! গন্ধটা আমার নাকে প্রবেশের পর থেকে ভাবতে লাগলাম, সেই গন্ধটা আসলে দুর্গন্ধ এবং আমার মাথা ঘুরে যাবার উপক্রম হলো। কিন্তু ঊষাকে কিছুই বললাম না। কারণ তখনো আমি নিশ্চিত না যে দুর্গন্ধটা ঊষার গা থেকেই আসছে নাকি এই আলো-বাতাসহীন বন্ধ ঘরটার ভেতর সৃষ্ট অবস্থা থেকে আসছে! আবার এমনও হতে পারে এটা ঊষার কামগন্ধ।

পাঠক হয়তো ভাবতে পারেন কামগন্ধ আবার কি? শাস্ত্র বলে, নিজেকে চিনুন। আর আমি বলি, নিজের স্ত্রীকে (বা স্বামীকে) চিনে রাখা ভালো। পদ্মিনী বা চিত্রানী, শঙ্খিনী বা হস্তিনী কোন দলে ভিড়বে আপনার স্ত্রী? প্রশ্ন শুনে গোলচোখে বিস্মিত হবার কিছু নেই। কারণ সেই সুদূর অতীতে ডাঃ ভ্যান ডি ভেল্ডী বা ডাঃ হ্যাভলক এলিস গন্ধরতি সম্পর্কে কিছু বলার কয়েক শতাব্দী আগেই থেকেই শুনে আসছি। ‘রতি রহস্য’, ‘রতি মঞ্জরী’, ‘অনঙ্গরঙ্গ’ বা ‘কামসূত্র’ নামীয় আদি ভারতীয় পুস্তকে লেখক কোক্কোকম, জয়দেব, কল্যাণ মল্ল – এঁরা গন্ধানুসারী নারীর শ্রেনীবিন্যাসের আভাস দিয়েছেন। কয়েকটি বৈশিষ্ট যেমন, শারিরীক দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ, মুখরূপ (চক্ষু, কর্ণ, নাসিকা, গ্রীবা), বক্ষদ্বয়ের গঠন, গোপনাঙ্গ (ভগপীঠ, ভগাঙ্কুর, যোনি) এবং কামসলিল নারীকে সামনে রেখে নারীকে চারটি শ্রেনীতে সাজিয়েছেন কোক্কোকম এবং কল্যাণ মল্ল। এদের মধ্যে বারবণিতা হচ্ছে পদ্মিনী; ইনি হরিণী নয়না, বিকশিত কমল-এর গন্ধ এর কামসলিলে। এরপরেই বিম্বাধরা, সঙ্গীতপ্রিয়া চিত্রাণী; মধুগন্ধে ভরা এর যোনিরক্ষণ। এরপরে শঙ্খিনী; ক্ষুদ্র পয়োধরা কিন্তু চন্ডবেগ্য আর কামসলিল ক্ষারগন্ধী। সবার শেষে হস্তিনী, স্বভাবতই বিপুলা এবং লজ্জাহীনা, আর মদমত্ত হস্তির মতোই গন্ধ আছে কামোত্তেজিতা এই অংশের নারীর দেহে। এই শ্রেনীবিন্যাসের ভেতর দিয়ে সৌরভই ফুটে উঠেছে নামকরণের স্বার্থকতা। তবে প্রাচীন ভারতের লেখক জয়দেবকৃত রতিমঞ্জরীতে কামগন্ধের বদলে দেহগন্ধই নারীর শ্রেনীবিন্যাসের প্রেরণা যুগিয়েছে। পদ্মিনী পদ্মগন্ধা, চিত্রাণী মৎস্যগন্ধা, শাঙ্খিনী ক্ষারগন্ধা আর হস্তিনী মদগন্ধা। কাব্যে দেহগন্ধের আরেকটি সুন্দর উদাহরণ: ‘শ্রী অঙ্গের উত্তপ্ত সৌরভ।’

প্রশ্ন জাগবে, এটি কি কবির কল্পনা? সন্দেহ যতই থাক, এটা সত্য যে, আপনার দেহে গন্ধ নেই যে গন্ধে আপনার সঙ্গী বা সঙ্গিনী লব্ধ হবে বলে অন্যের যে নির্গন্ধ হবে তা কি হলফ করে বলা যায়! আর কে না জানে কুকুর সেই গন্ধ শুঁকেই মানুষ চিনে নেয় এবং এক মানুষ থেকে অন্য মানুষে ভেদজ্ঞান জন্মে। এ দুটি ঘটনা থেকেই বোঝা যায় যে, মানুষ মাত্রেই একটা আলাদা গন্ধ আছে। আমরা যারা এ গন্ধটি পাই না তাদের জন্য অন্যত্র চোখ বুলিয়ে দেখলেই বোঝা যাবে সত্যটি। খুঁজে নিতে হবে ঘ্রাণ অনুভূতি সীমার নিম্নতায়, গন্ধেন্দ্রিয়জ অল্প সংবেদিতায় কিংবা শ্বাপদতাল্য তীক্ষ্ণ ঘ্রাণশক্তির অবিদ্যমানতায়। দেহগন্ধের আরেকটি প্রমান মনুষ্যজগতের কেউ কেউ।

গন্ধ যৌনতাকে উদ্দীপ্ত করতে পারে। নিম্নস্তরের পশু-পক্ষীদের মধ্যে এই গন্ধ বড় রকমের যৌন আকর্ষণ সৃষ্টি করে। প্রজনন ঋতুতে অনেক প্রাণীর যৌনতা হয়ে ওঠে গন্ধময়। অধিকাংশ স্তন্যপায়ী প্রাণীর কাছেই গন্ধ হচ্ছে রাগোদ্দীপক, স্ত্রী প্রাণী গন্ধমোহিনী বিশেষ। আবার পুরুষ প্রাণীর দেহনিঃসৃত গন্ধও স্ত্রী-প্রাণীকে কামবশ করে মোহিত করে যেমন: কস’রী-মৃগ, গন্ধগোকুল, গন্ধবিবর। এছাড়া কুকুর, টিকটিকি, সাপ প্রভৃতি প্রাণী ও সরীসৃপ প্রাণীর মধ্যেই গন্ধের আধিক্য দেখা যায়। এরা জগতকে চিনে নেয় গন্ধ দিয়েই। এদের ঘ্রাণের ভেতর দিয়ে যৌনতার একটি বিরাট অংশ জুড়ে যে গন্ধ বিরাজিত থাকবে সেটাই স্বাভাবিক। আমরা ভাবতে পারি, অভিব্যক্তির বিচারে তবে কি মানুষের এই ঘ্রাণের ব্যাপারটি বিবর্তনের পাল্লায় পড়ে হারিয়ে গেছে? মানুষের যৌনজীবনে ঘ্রাণের ব্যাপারটা কি গুরুত্বহীন হয়ে পড়েছে? কম হলেও রতির ব্যাপারে ঘ্রাণের যে একটা প্রভাব বা ভুমিকা রয়েছে তা কেউ অস্বীকার করতে পারবে না। কখনো কখনো রতিক্রিয়ায় ঘ্রাণই যৌনতার অপরিহার্য আঙ্গিক শর্ত হিসাবে দেখা গণ্য করা যায়। দেহগন্ধ আসে মানুষের প্রতিটি অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ থেকে, তার গ্রাত্রচর্ম, হাত-পা, কেশরাজি, এবং সমগ্র দেহদ্বার থেকে এমনকি তার ফুসফুস নিঃসৃত শ্বাস্তপ্রশ্বাস থেকেও। আর কক্ষপুট বা বসলো ও গোপনাঙ্গ থেকে যে গন্ধ আসে তাই কামগন্ধ। বাহুমূল ও যোনাঙ্গ অঞ্চলে এক বিশেষ ধরনের স্বেদগ্রন্থি থেকে ক্ষরিত রসের গন্ধই সুরভিত করেছে যার আকর্ষণ অনেকের কাছেই অপ্রতিরোধ্য যৌনপ্রদ। নারী উত্তেজিত হলে তার এই গন্ধের ক্ষরণ বেড়ে যায়। আবার পুরুষের বীর্য স্পার্মিন মিশ্রিত বলেই তাতে একটা গন্ধ পাওয়া যায়। সদ্য স্খলিত বীর্যের গন্ধ কোনো কোনো নারীকে পুলকিত করে এমনকি নতুনরূপে রতিবাসনায় উত্তেজিত করে তোলে। যৌনক্লেদ বা যৌনাঙ্গে জমে ওঠা পদার্থের মধ্যে লিঙ্গগ্রীবার খাঁজে, নারীর ভগাঙ্কুরে, ক্ষুদ্রোষ্ঠের আশেপাশে এক রকম সাদা সাদা পদার্থ জমে ওঠে যার গন্ধে কেউ কেউ হরষিত এবং কেউ বা বমনোদ্রেকে বিসাদগ্রস্ত হতে পারেন। আর ঋতুস্রাব চলাকালে নারীদেহে এক প্রকার গন্ধ অনুভূত হয় তা তো সকলেই জানেন যা অনেক পুরুষকেই মুগ্ধ করতে পারে। এই গন্ধ ভাবানুসঙ্গের সমারোহ আর সুখস্মৃতির যাওয়া-আসা এবং সমগ্র নার্ভতন্ত্রের চঞ্চলতা, উদ্দীপনা সৃষ্টি করে। তবে পুঁতিগন্ধময় কোনোকিছু সান্নিধ্যে এলেই যে মানুষ অপ্রসন্নচিত্ত হয়ে ওঠে তা কিন্তু ঠিক নয়। কখনো কখনো সেটাই মানুষের কাছে সুখকর এমনকি কামভাবের উদ্রেক করতে পারে। শারিরীক ক্লেদাদির গন্ধ তাই দুর্গন্ধ হয়েও কোনো কোনো ব্যক্তির কাছে প্রীতিকর ও যৌনপ্রদ হতে পারে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে এ গন্ধ না মিললে পুরুষের লিঙ্গোত্থান বা নারীর চরমানন্দও স’গিত হয়ে পড়ে। যাহোক, আমি এসব ভাবনা থেকে সরে এলাম। কারণ সেই সংক্ষিপ্ত সময়ের মধ্যে দু’তিনবার মিলিত হবার ব্যাপারটা ছিল আমার জন্য খুবই গুরুত্বপুর্ণ!

আমাদের দ্বিতীয় রাউন্ডের সঙ্গম শুরু হলো কিছুক্ষণ বিশ্রামের পর। প্রথম রাউন্ড শেষে আমরা দু’জনই বেশ ক্লান্ত হয়ে পড়েছিলাম। সেই ক্লানি- ভুলে মিনিট দশেক পরেই আমরা আবার শুরু করলাম। এবার তৃষা উপরে উঠে শুরু করলো। খানিকক্ষণ বাদে ওকে ডগি-স্টাইলে পজিশন তৈরি করে প্রচন্ডভাবে সঙ্গমে লিপ্ত হলাম। প্রায় ত্রিশ মিনিট চললো সেই সঙ্গম। এবারের সঙ্গমে এত তীব্রতা আর এত সুখ পেলাম যে ঊষার যোনি থেকে আমার স্খলন না হওয়া পর্যন্ত লিঙ্গটাকে টেনে বের করতে পারলাম না। ঊষাও আমার প্রতিটা আঘাতের সময় মুখে আশ্চর্যরকমভাবে নানান শীৎকার করে চললো। আমার কবোষ্ণ বীর্যপাতে ঊষার যোনিগহ্বর আবারও ভরে গেল।

শেষমুহূর্তে ঊষা বললো, আজ আমার কিছুটা হয়েছে। আজকের মতো ভালো আর কখনো লাগেনি। তুমি দেখছি আমাকে পাগল করে ফেলবা।

আমি বললাম, নিজের ওপর এতটাই আস্থাশীল ছিলাম যে, তোমাকে সুখী না করা পর্যন্ত আমি ক্ষান্ত হব না এই ছিল আমার মনের একান্ত ইচ্ছা। আমি যে এতক্ষণ টিকে থাকতে পেরেছি সেজন্য ভালো লাগছে। মনে মনে বললাম, এটা আমার গর্ব! আমার পলায়মান যৌবনের এই শক্তিতে আমি পুরোপুরি সন’ষ্ট।

ঊষা জিজ্ঞেস করলো, তোমার কেমন লাগলো?

-অদ্ভূৎ! আশ্চর্যরকম ভালো লেগেছে আমার! বললাম।

-আসলে তোমার ভালো লাগে জানতে পারলে তখন আমারও ভালো লাগে। ঊষা বললো।
পরদিন আমরা যখন এসব নিয়ে আবার আলোচনায় মিলিত হলাম তখন ঊষা বললো, যতই দিন যাচ্ছে ততই আমার সেক্স বেড়ে যাচ্ছে। এখন সারাদিন-সারারাত কেবল তোমার কথাই মনে পড়ে আমার। মনে হয় আমি তোমার বুকের উপর মাথা রেখে ঘুমিয়ে আছি। এভাবে যদি চিরদিন ঘুমিয়ে থাকতে পারতাম তাহলে …

বললাম, আমি বুঝি না যে – তুমি আমার মতো একজন বয়োজ্যোষ্ঠ লোকের প্রেমে পড় কিভাবে! ছেলে-ছোকড়া কাউকে কি তোমার পছন্দ হয় না?

ঊষা বললো, না। আমার মনে হয় ওরা সবাই কেবল ছোকড়া, ওদের বিশ্বাস করা যায় না। সারা জীবনে তোমার মতো মানুষ আমি দ্বিতীয়টি আর পেলাম না। কেন যে তোমার সঙ্গে আমার আরও আগে পরিচয় হলো না, ভাবলে আসফোস হয়!

Author:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *